ফুঁসে উঠছে তিস্তা, খুলে দেয়া হয়েছে ৪৪ গেট

নীলফামারীতে উজানের ঢলের পানিতে তিস্তা নদী ফুঁসে উঠতে শুরু করেছে। বর্ষা মৌসুমের শুরুতেই তিস্তা নদী দু’টি চ্যানেলে প্রবাহিত হওয়ায় চরাঞ্চলের মানুষজন আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি সুইসগেট খুলে দেয়া হয়েছে। তিস্তার উজান ও ভাটি অঞ্চল এখন থৈ থৈ পানিতে ভাসছে।

বুধবার দিবাগত রাত ৯টার দিকে তিস্তার পানি প্রবাহ ডালিয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হলেও আজ বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা থেকে ৯ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

তিস্তাপাড়ের ঝাড়শিঙ্গের চর গ্রামের একাধিক গ্রামবাসী জানান, তিস্তা নদীর পানি রাতে বৃদ্ধি পাওয়া এবং দু’টি চ্যানেলে নদী প্রবাহিত হওয়ায় চরাঞ্চলের মানুষজন চিন্তায় পড়েছে। এ অবস্থায় তিস্তাপাড়ের ডিমলা উপজেলার পূর্বছাতনাই, খগাখড়িবাড়ি, টেপাখড়িবাড়ি, খালিশাচাঁপানী, ঝুনাগাছ চাঁপানী, জলঢাকা উপজেলার গোলমুন্ডা, ডাউয়াবাড়ী, শৌলমারী, কৈমারী এলাকার তিস্তাপাড়ের মানুষজন নিরাপদ আশ্রয় নিয়েছে।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, তিস্তা ব্যারাজের উজানে দুই বছর ধরে বর্ষার সময় তিস্তা দু’টি চ্যানেলে প্রবাহিত হয়ে আসছে। এবার নদীর বাম তীরে বাঁধ নির্মাণের কাজ চলছে। বাঁধটি নির্মাণ শেষ হলে তিস্তা পুনরায় একটি চ্যানেলে ফিরে আসবে। মূল চ্যানেল কালীগঞ্জ জিরো পয়েন্ট ছাড়াও টেপাখড়িবাড়ী ও চরখড়িবাড়ী দিয়ে তিস্তা আরেকটি চ্যানেলে প্রবেশ করেছে। পাশাপাশি তিস্তার ডান তীরের বাঁধের হার্ডপয়েন্ট ঘেঁষে প্রবাহিত হওয়ায় নজরদারিসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। উজানের ঢলের পরিস্থিতি সামাল দিতে তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি গেট খুলে রাখা হয়েছে।

You Might Also Like