শিক্ষিকার কাণ্ড!

তাঁর কাজই হলো সুশিক্ষা দেওয়া। খুদে পড়ুয়াদের ঠিক-ভুলের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া। তিনি শিক্ষিকা। কাঁধে বড় দায়িত্ব। কিন্তু শিক্ষিকার মোড়কের বাইরেও তাঁর আরও একটি পরিচয় আছে। এবং সেই পরিচয়তেই তিনি সব থেকে বেশি খুশি। তিনি যে অভিনেতা শহীদ কাপুরের অন্ধভক্ত। না, না তাঁর দৃষ্টিশক্তি ঠিকই আছে।

কিন্তু তাঁর হৃদয়ে যে হৃৎস্পন্দন-এর পরিবর্তে শোনা যায় শুধুই শহীদ কপুরের নাম।

হৃদয়ের এই তীব্র টানকে উপেক্ষা করে কি আর কলকাতায় আটকে থাকা যায়? না, যায় না। আর তাই তো এই শিক্ষিকাও কলকাতার পিছুটান ভুলে মাস তিনেক আগে সোজা পাড়ি দিয়েছিলেন স্বপ্ননগরীতে।

একটাই আশা, শহীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ এবং একান্তে কিছুটা সময় কাটানো। কিন্তু সে যাত্রায় হাজার চেষ্টা করেও দেখা মেলেনি শহীদের। উপরন্তু বাড়ির লোকরা শেষ পর্যন্ত বাড়ি ফিরিয়ে এনেছিলেন তাঁকে।
তবে তিনি শিক্ষিকা বলে কথা! দমে যাওয়ার পাত্রী মোটেই নন।

তাই আবারও গত সপ্তাহে বাড়ি থেকে পালিয়ে তিনি সোজা চলে যান মুম্বাইয়ে। আরও একবার শুরু হয় শহীদের সঙ্গে দেখা করা প্রচেষ্টা। তবে আগের বারের মতো এবার আর খালি হাতে ফিরে আসতে হয়নি তাঁকে। নিজের অফিসের লোকজনের মুখে তাঁর কথা শুনে শহীদ তাঁকে খুঁজে বের করার নির্দেশ দেন।

পরে তাঁর সঙ্গে দেখা হলে এমন অন্ধ অনুরাগীর সঙ্গে বেশ খানিকটা সময় কাটান। মন দিয়ে শোনেন তাঁর মুম্বাই অভিযানের কথাও। আবার বোঝানোরও চেষ্টা করেন এমন কাজ করা তাঁর একেবারেই উচিত হয়নি।

পরে শহীদ বলেছেন যে মানুষের কাছে এমন নিঃস্বার্থ ভালোবাসা পেয়ে তিনি আপ্লুত। তবে তার সঙ্গে এও বলেন যে এমন ঝুঁকি নেওয়া কখনোই উচিত হয়নি ওই শিক্ষিকার।

You Might Also Like