প্যান্ডোরার বাক্স যখন খুলেছে, ভালো করেই খুলুক!

এম. শামসুল আলম

অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে মন্ত্রী হয়েছেন তোফায়েল আহমদ, পার্টির প্রবীণ নেতা। অসভ্যের মত তুই তোকারি আর খিস্তি খেউর করে পার পাবেন না। হাডুডু খেলতে এসে অন্যের ঘরে যখন ছি নিয়ে চলে এসেছেন, তখন পুরো খেলা খেলেই যেতে হবে। তারেক রহমানের তথ্য ভিত্তিক প্রশ্নের জবাব না দিয়ে পার পাবেন না।

প্রশ্ন এক: তারেক রহমান প্রশ্ন তুলেছিলেন, ১৯৭২ সালে শেখ মুজিব বাংলাদেশে ফিরে অবৈধভাবে প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসেছিলেন কি নিা? কারন মাত্র ১০ মাস আগে ১০ এপ্রিল ১৯৭১ স্বাধীনতার ঘোষনাপত্রের এক আদেশবলে “সংবিধান রচনা হওয়া অবধি শেখ মুজিবকে রাষ্ট্রপতি হিসাবে” নিয়োগ করে সত্তরের নির্বাচনে নির্বাচিত আওয়ামীলীগ গণপরিষদ সদস্যরা। দেশে ফিরে মুজিব শপথ নিলেন রাষ্ট্রপতির, কিন্তু দেখলেন তার ক্ষমতা নাই। তখন যা ঘটেছিল সেটা পাওয়া যায় তাজুদ্দিনের বিশেষ সহকারী মঈদুল হাসানের লেখণিতে, “এরপর মূল রাজনৈতিক প্রশ্ন ছিল বাংলাদেশ সরকারের নেতৃত্ব পুনর্নির্ধারণের। ১১ই জানুয়ারী সকালে শেখ মুজিব ও তাজউদ্দিন প্রথম এ বিষয়ে একান্ত আলাপে প্রবৃত্ত হন। এতদিন শেখ মুজিব ছিলেন রাষ্ট্রপতি, তাজউদ্দিন প্রধানমন্ত্রী। পার্লামেন্টারী ব্যবস্থায় সরকার পরিচালনার ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতির কোন কার্যকরী ক্ষমতা নেই। সরকার পরিচালনার সর্বপ্রধান ভূমিকা শেখ মুজিব পালন করেন, তা-ই ছিল অধিকাংশ আওয়ামী লীগ নেতা ও কর্মীদের ঐকান্তিক কামনা। তাদের এই ইচ্ছার কথা উভয় নেতাই অবগত ছিলেন। কাজেই সরকার পরিচালনার মূল দায়িত্ব শেখ মুজিবের কাছে হস্তান্তরিত করার বিষয়টি স্বল্প আলোচনার মাধ্যমেই স্থির হয়” (মূলধারা ৭১)। ঐ ঘটনার সমর্থনে এখন দাবী করা হচ্ছে, ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করে ওই দিনই রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। পর দিন ১১ জানুয়ারি মুজিব ‘অস্থায়ী শাসনতান্ত্রিক আদেশ’ জারি করে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রের মাধ্যমে গঠিত ‘রাষ্ট্রপতি শাসিত’ সরকারের বদলে ‘প্রধানমন্ত্রী শাসিত’ সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন করেন। প্রশ্ন হলো, কলমের এক খোচায় গণপরিষদের সিদ্ধান্ত ছাড়াই কি মুজিব এটা করতে পারেন? স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রকে নিজের স্বার্থে এক ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে রাষ্ট্রপতি সরকারকে প্রধানমন্ত্রী শাসিত সরকার বানানোর ক্ষমতা অবশ্যই তার ছিল না। এটা কেবল গায়ের জোরে করেছেন, যা অবৈধ। তবে কি মুজিবের কাছে আইন কানুনের কোনো বালাই ছিল না? নাকি দেশটা কেবল একজনের জমিদারী ছিল? যদি তা না হয়, তবে শেখ মুজিব নিশ্চিতভাবেই  অবৈধভাবে প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন।

প্রশ্ন দুই: তোফায়েল সাহেব বলেছেন, ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারী শেখ মুজিবকে ভুট্টো বাংলাদেশের রাষ্ট্রপ্রধান হিসাবে বিদায় দিয়েছেন। হতে পারে আপনার কথা সত্য, সেটা মুজিবের সহচর ডঃ কামাল হোসেনও সাক্ষ্য দিয়েছেন। কিন্তু মুজিব বাংলার রাষ্ট্রপতি হয়ে ৬ জানুয়ারী ১৯৭২ পাকিস্তানের নতুন পাসপোর্ট বানিয়েছিলেন কেনো? একজন পাকিস্তানী নাগরিক হয়ে বাংলাদেশে রাজত্ব করতে? এর ১১ দিন আগে ২৭ ডিসেম্বর ১৯৭১ বৈঠকে শেখ মুজিব ভুট্টোকে আশ্বাস দিয়ে আসলেন, ”I told you it will be confederation. This is also between you and me… You leave it to me…Absolutely leave it to me. Trust me… My idea was we will live together and we will rule this country. You know the occupation (Indian) army is there.” (Stanley Wolpert, Zulfi Bhutto of Pakistan). এটা কি কোনো স্বাধীন বাংলাদেশের প্রেসিডেন্টের বক্তব্য? নাকি পাকিস্তানের একজন অনুগত নেতার?

Passport bangabanduপ্রশ্ন তিন: শেখ মুজিবের জন্য কি বাংলায় কোনো ভিন্ন আইন ছিল? ১৯৭১ সালে জামায়াত নেতা গোলাম আযম এবং আওয়ামীলীগ নেতা শেখ মুজিব দু’জনেই পাকিস্তানে ছিলেন। বাংলাদেশ জন্মের পরে দু’জনেই পাকিস্তানের নাগরিকত্ব নবায়ন করে পাসপোর্ট নিয়েছিলেন। ১১ই জুলাই ১৯৭৮ গোলাম আযম পাকিস্তানী পাসপোর্ট নিয়ে বাংলাদেশে এসে বাংলাদেশী নাগরিকত্বের আবেদন করেন। বাংলাদেশ সরকারের চাহিদা অনুয়ায়ী গোলাম আযম বাংলাদেশের আনুগত্য বিষয়ে হলফনামা জমা দেন ৩০শে এপ্রিল ১৯৮১। এটা অনেকদিন ঝুলে থাকার পরে শেখ হাসিনার আওয়ামীলীগ গোলাম আযমের অবৈধ অবস্থানের বিরুদ্ধে মামলা করলে সুপ্রীম কোর্টের প্রধান বিচারপতি হাবিবুর রহমান শেলীর রায়ে গোলাম আযম বাংলাদেশের নাগরিকত্ব পান। শেখ হাসিনা ও তোফায়েলকে জবাব দিতে হবে, তাদের পিতা ও নেতা কোন পদ্ধতিতে কবে বাংলাদেশের নাগরিক হয়েছিলেন? তিনি কি গোলাম আযমের মত কোনো হলফনামা দাখিল করেছিলেন? নাকি তার জন্য ছিল ভিন্ন কোন আইন? স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধানে সবার জন্য নাগরিক আইন সমান, এটাই জানে নাগরিকরা।

প্রশ্ন চার: স্বাধীন বাংলাদেশ পুরোপুরি শত্রুমুক্ত হলো ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১। এরপরে শেখ মুজিবুর রহমান মুক্ত হয়ে নতুন করে পাকিস্তানের নাগরিকত্ব নেন ৬ জানুয়ারী ১৯৭২। এটা কি তোফায়েল সাহেব জানেন না? নাকি সব কিছু জেনেও ঘুমি য়ে আছেন? ১০ জানুয়ারী বাংলাদেশে ফিরে মুজিব কি পাকিস্তানের আনুগত্য ত্যাগ করে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব নিয়েছিলেন? নিয়ে থাকলে কবে, কিভাবে, কখন, কোথায় আছে সে তথ্য? নাকি একজন পাকিস্তানী নাগরিক মুজিব অবৈধভাবে রাজত্ব করলেন ১৬৭৯ দিন? ভুট্টোর সাথে মুজিবের গলাগলি ঢলাঢলি বাংলার মানুষ দেখেছে ১৯৭৪ অবধি, এমনকি ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের মধ্যেও।  তাহলে খুব সহজেই প্রশ্ন উঠতেই পারে- ভুট্টো কি মুজিব নামে এক পাকিস্তানের নাগরিককে হাতে পাসপোর্ট ধরিয়ে দিয়ে বাংলাদেশে রাজত্ব করতে পাঠালেন?

এসব প্রশ্নের জবাব জানা দরকার, জনাব তোফায়েল।

You Might Also Like