আইএসআইএল-বিরোধী যুদ্ধে ইরাককে সাহায্য দেব না : আমেরিকা

মার্কিন সশস্ত্র বাহিনীর (জয়েন্ট চিফ অফ স্টাফদের) প্রধান জেনারেল মার্টিন ডেম্পসি ইরাকে বিদেশী মদদপুষ্ট তাকফিরি সন্ত্রাসী গ্রুপ আইএসআইএল-এর বিরুদ্ধে দেশটির সরকারি সেনাদের লড়াইয়ে বাগদাদকে সহায়তা দিতে রাজি হননি।

সম্প্রতি মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী চাক হ্যাগেল ও সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান এক সংবাদ সম্মেলনে ইরাক সংকট প্রসঙ্গে কথা বলেছেন। তারা বলেছেন, বিদেশী সহায়তা ছাড়া ইরাকি সরকারি সেনারা আইএসআইএল-এর জঙ্গিদের কাছ থেকে দেশটির বিপুল অঞ্চল পুনর্দখল করতে পারবে না।

ইরাকে বর্তমানে ৮০০’রও বেশি মার্কিন সেনা ও সামরিক উপদেষ্টা অবস্থান করছে।

মার্কিন সরকার আইএসআইএল-এর সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে মাঝে মধ্যে কথা বললেও বাস্তবে তাদের অর্থ, গোয়েন্দা তথ্য ও অস্ত্র সহায়তা দিয়ে আসছে।

ওয়াশিংটন আইএসআইএল-এর সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বাগদাদকে সাহায্য করার শর্ত হিসেবে ইরাকের নতুন সরকার গঠনে তার পছন্দের লোকদের নিয়োগ দেয়ার দাবি জানাচ্ছে ও অনেক মার্কিন কর্মকর্তা নুরি আল মালিকিকে সরকার থেকে সরিয়ে দেয়ার কথাও বলছেন। ইরাকের সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশভাবে জয়ী নুরি আল মালিকির জোট বলেছে, কারা ইরাকে সরকার গঠন করবে তা ইরাকিদের বিষয় এবং মার্কিন সরকারের এ বিষয়ে হস্তক্ষেপের কোনো অধিকার নেই।

ইরাক সাম্প্রতিক সময়ে আইএসআইএল-এর সন্ত্রাসীদের হাতে দেশটির দুটি প্রদেশের ব্যাপক অঞ্চল হাতছাড়া করার পর তাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক সামরিক অভিযান শুরু করেছে। বাগদাদ আমেরিকার কাছ থেকে এফ-সিক্সটিন জঙ্গি বিমান কেনা বাবদ বিপুল অংকের অর্থ পরিশোধ করা সত্ত্বেও মার্কিন সরকার নানা অজুহাতে সেগুলো পাঠাতে দেরি করছে।

ইরাকের কাছে ৪০০০ মার্কিন হেলফায়ার ক্ষেপণাস্ত্র বিক্রির উদ্যোগও মার্কিন কর্মকর্তাদের টালবাহানা ও দ্বিধাদ্বন্দ্বের দোলাচলে আটকে আছে। ইরাকের সরকারি কর্মকর্তারা বলেছেন, মার্কিন সরকার বাগদাদকে সামরিক সহায়তা না দিলে তারা ইরান ও রাশিয়ার দিকে ঝুঁকে পড়বেন।

You Might Also Like