সেদিন কিপিং করেছিলেন কোহলি; প্রতিপক্ষ ছিল বাংলাদেশ

ব্যাট হাতে ভয়ংকর বিরাট কোহলি কিংবা নেতা হিসেবে মাঠে বিচিত্র সব অঙ্গভঙ্গি করা কোহলিকে সবাই চেনে। ব্যাট হাতে একের পর এক রেকর্ড গড়ে যাচ্ছেন। অথচ এই কোহলির কিন্তু আরেকটা গুণও আছে। খুব জরুরি প্রয়োজন হলে তিনি উইকেটকিপিংটাও করে দিতে পারেন! এর জ্বলন্ত্ব প্রমাণ দেখা গিয়েছিল ২০১৫ সালে ভারতীয় দলের ঐতিহাসিক বাংলাদেশ সফরে। 'ঐতিহাসিক' বলার কারণ হলো, ৩ ম্যাচের ওই ওয়ানডে সিরিজটি বাংলাদেশ ২-১ ব্যবধানে জিতে নিয়েছিল।

২০১৫ সালের ১৮ জুন মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে কিপিং গ্লাভস পরতে দেখা যায় বিরাট কোহলিকে। বাংলাদেশের ইনিংসের শেষদিকে টয়লেট চেপেছিল 'ক্যাপ্টেন কুল' মহেন্দ্র সিং ধোনির। তাই তিনি কোহলিকে গ্লাভসজোড় দিয়ে মাঠের বাইরে চলে যান। এক ওভার পরেই তিনি ফিরে এসে পুনরায় উইকেটকিপিংয়ের দায়িত্ব বুঝে নেন। সেই ম্যাচে ৩০৭ রানে অল-আউট হওয়া বাংলাদেশ পায় ৭৯ রানের বড় জয়।

সেই সিরিজের পর মায়াঙ্ক আগরওয়ালকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে কোহলি বলেছিলেন, 'কখনও সুযোগ পেলে মাহি ভাইকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন, এমনটা কীভাবে হয়েছিল। মাহি ভাই হঠাৎই আমাকে বলে, দু-তিন ওভার উইকেটকিপিং করে দে। আমি উইকেটকিপিং করি এবং প্রয়োজন মতো ফিল্ডিংয়েও রদবদল করি। তখন বুঝতে পারি, মাহি ভাইকে প্রত্যেকটা বলে খেয়াল রাখতে হয়। সেইসঙ্গে ফিল্ডিংটাও সাজাতে হয়। কাজটা মোটেও সহজ নয়।'

কোহলির কিপিংয়ের সেই ভিডিও এখন নতুন করে ভাইরাল হয়েছে। তিনি এমন একটা সময়ে কিপিং গ্লাভস পরেন, যখন বোলিং করছিলেন পেস তারকা উমেশ যাদব। তার গতির সামনে কোহলি বেশ ভয়ই পাচ্ছিলেন। তার ওপর তিনি প্যাডও পরেননি। ওই মুহূর্তের অনুভূতি জানিয়ে কোহলি বলেছিলেন, 'সমস্যা ছিল একটাই। বল করছিল উমেশ যাদব। সে খুব জোরে বল করছিল। মনে হচ্ছিল এবার বুঝি বল এসে নাকে লাগবে। তাই ভাবছিলাম হেলমেট পরব। পরে অবশ্য হেলমেট পরতে লজ্জা করছিল।'


Comment As:

Comment (0)