সৌদি সামরিক ঘাঁটিতে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করল ইয়েমেন

ইয়েমেনের সেনাবাহিনী ও জনপ্রিয় আনসারুল্লাহ যোদ্ধারা সৌদি আরবের গভীর অভ্যন্তরে তিনটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। দারিদ্রপীড়িত দেশ ইয়েমেনের ওপর সৌদি বাহিনীর বর্বরোচিত আগ্রাসনের জবাবে নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি এসব ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে ইয়েমেন।

আরবি ভাষার আনসারুল্লাহ ওয়েবসাইট জানিয়েছে, ইয়েমেনি সেনাবাহিনী ও তার মিত্র যোদ্ধারা সৌদি আরবের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় নাজরান অঞ্চলের ‘রাজলা’ সামরিক ঘাঁটি লক্ষ্য করে স্বল্প পাল্লার আসিফ-১ (টাইফুন-১) ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে। রাজধানী রিয়াদ থেকে ৮৪৪ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত ওই সামরিক ঘাঁটি লক্ষ্য করে মঙ্গলবার বিকেলে এসব ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়।

তবে এসব হামলায় ক্ষয়ক্ষতির সম্ভাব্য বিবরণ পাওয়া যায়নি। চলতি বছরের গোড়ার দিকে ইয়েমেনের সেনাবাহিনী সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদের কাছাকাছি একটি সামরিক ঘাঁটিতে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়েছিল।

ক্ষেপণাস্ত্রের পাশাপাশি ড্রোন প্রযুক্তিতেও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে ইয়েমেন। দেশটির সেনাবাহিনী গত ২৬ ফেব্রুয়ারি তাদের নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি চারটি ড্রোনের মোড়ক উন্মোচন করে। পদত্যাগকারী প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বু মানসুর হাদির অনুগত মিলিশিয়াদের অবস্থান ও তৎপরতা জানার পাশাপাশি সৌদি সেনাদের অবস্থান জেনে তাদের ওপর হামলা চালানোর লক্ষ্যে এসব ড্রোন তৈরি করা হয়েছে।
ওই চারটি ড্রোনের তিনটি তথ্য সংগ্রহের কাজ করবে এবং অপরটিকে হামলার কাজে ব্যবহার করা হবে। কাসেফ-১ (স্ট্রাইকার-১) নামের এ ড্রোনের দৈর্ঘ্য আড়াই মিটার এবং এর বড় ডানার দৈর্ঘ্য তিন মিটার। ৩০ কেজি ওজনের বোমা বা ক্ষেপণাস্ত্র বহনকারী ড্রোনটি টানা ১২০ মিনিট আকাশে উড়তে সক্ষম।