সালাহ উদ্দিনকে বাঁচিয়ে রাখার আকুতি স্ত্রীর

বিএনপির মুখপাত্র ও যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদকে বাঁচিয়ে রাখতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আকুতি জানিয়েছেন তার স্ত্রী হাসিনা আহমেদ। ফরাসি বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েট ফ্রান্স প্রেসকে (এএফপি)   সোমবার দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ আকুতি জানান তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, যদি তার (সালাহ উদ্দিন) বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকে, তাহলে তার বিচার করা হোক। কিন্তু দয়া করে তাকে বাঁচিয়ে রাখুন।

এএফপিকে হাসিনা জানান, গত মঙ্গলবার গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন সালাহ উদ্দিনকে রাজধানীর একটি বাড়ি থেকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। এরপর থেকে তার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

এএফপির প্রতিবেদনের শুরুতে বলা হয়, সালাহ উদ্দিন আহমেদ গত জানুয়ারিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মুখপাত্র নির্বাচিত হন। বিএনপির ডাকা অবরোধের শুরুতে সহিংসতা উসকে দেয়ার অভিযোগে তার পূর্বসূরিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। প্রায় এক সপ্তাহ আগে সাদা পোশাকধারী ডিবি পুলিশ সালাহ উদ্দিন আহমেদকে একটি বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়।

তাকে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা অপহরণ করেছে বলে সোমবার অভিযোগ আনে বিএনপি। বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সহযোগী শিমুল বিশ্বাস এএফপিকে বলেন, সালাহউদ্দিন আহমেদকে চোখ বেঁধে তুলে নিয়ে যায় আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর সদস্যরা এবং আমরা বিশ্বাস করি তিনি এখনো তাদের নিরাপত্তা হেফাজতে রয়েছেন। িতিনি বলেন, তাকে মুক্তি দেয়া বা আদালতে হাজির করা উচিত।

তবে সরকার ও পুলিশ সালাহ উদ্দিনের নিখোঁজের ঘটনায় কোনো ধরনের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেছে। গত শনিবার পুলিশের মহাপরিদর্শক শহিদুল হক অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, পুলিশ  বা আইন প্রয়োগকারী কোনো সংস্থা সালাহ উদ্দিনকে অপহরণ করেনি।

মানবাধিকার সংস্থাগুলোর দাবি, রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলে সরকারের নির্দেশে সালাহ উদ্দিনকে উঠিয়ে নিয়ে গেছে নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

মানবাধিকারকর্মী আইনজীবীরা শঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে, তাকে বিচার ছাড়াই হত্যা করা হতে পারে।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ বশিরুল্লাহ এএফপিকে বলেছেন, হাইকোর্টে উপস্থাপিত প্রতিবেদনে পুলিশ জানিয়েছে, তারা সালাহ উদ্দিনকে গ্রেফতার করননি। তিনি তাদের হেফাজতেও নেই।