রংপুরে বাসে পেট্রোলবোমায় শিশুসহ নিহত ৫

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলা সদরে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের বাতাসন এলাকায় ঢাকাগামী একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে এক শিশুসহ পাঁচজন নিহত হয়েছে।
মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই চারজন মারা যায়।
এ ঘটনায় অগ্নিদগ্ধ ১০ জনকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। আরো দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।
এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে মিঠাপুকুরের আটজন জামায়াত-শিবির কর্মীকে আটক করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর থেকে খলিল পরিবহণ নামের যাত্রীবাহী বাসটি উলিপুর থেকে ঢাকার উদ্দেশে যাওয়ার সময় রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলা সদরের বাতাসন এলাকায় পৌঁছালে বাসটিকে লক্ষ্য করে পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করে দুর্বৃত্তরা। এতে বাসটিতে আগুন ধরে যায়।

আগুনে বাসে থাকা এক শিশুসহ চার যাত্রী দগ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান। আহত হয় ২০ যাত্রী। এদের মধ্যে ১০ জনকে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সেখানে আরো একজনের মৃত্যু হয়।

অগ্নিদগ্ধদের মধ্যে তছিরন নেছা নামের একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। অগ্নিদগ্ধদের মধ্যে একজন সেনাসদস্যের স্ত্রীসহ তিনজনকে রংপুর সিএমএইচে ভর্তি করা হয়েছে।

বাসের যাত্রীরা জানান, খলিল পরিবহণ নামের বাসে করে তারা উলিপুর থেকে ঢাকায় যাচ্ছিলেন। রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলা সদরের কাছে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কে আকস্মিকভাবে বাসে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলে ওঠে। তারা প্রাণভয়ে বাস থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় অনেকেই বাসের জানালার গ্লাস ভেঙে বের হওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু অনেক যাত্রী বের হতে না পারায় অগ্নিদগ্ধ হন। এদের মধ্যে চারজন বাসের ভেতরেই মারা যান।

You Might Also Like