মিল্কিওয়েতে অন্তত ৩৬টা অ্যালিয়েন সভ্যতা থাকতে পারে

অ্যালিয়েন বা ভিনগ্রহের প্রাণী আছে কি নেই, তা নিয়ে কযেক যুগ ধরেই চলছে বিতর্ক, আলোচনা। এবার সেই আলোচনায় নতুন সংযোজন হলো এক গবেষণা। এই গবেষণায় বলা হয়েছে, মহাকাশে যে গ্যালাক্সিতে আছি আমরা, সেই মিল্কি ওয়ে’র অন্তত ৩৬টি ভিনগ্রহবাসী সভ্যতা রেডিও সিগন্যাল পাঠানোর মাধ্যমে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চালাচ্ছে।

বৃটেনের নটিংহাম ইউনিভার্সিটির গবেষকরা ভিনগ্রহবাসীর সঙ্গে মানুষের সরাসরি যোগাযোগের প্রমাণ পাননি। তবে পৃথিবীতে যেভাবে মানব সভ্যতার উৎপত্তি হয়েছে, সেই বিবেচনায় আমাদের গ্যালাক্সিতেও অন্তত ৩৬টি গ্রহে বুদ্ধিমান প্রাণীর উৎপত্তি হয়ে থাকতে পারে বলে দাবি করেছেন। তাদের এই গবেষণাটি ছাপা হয়েছে দ্য অ্যাস্ট্রো ফিজিক্যাল জার্নালে। গবেষকরা এই হিসেব কষেছেন ‘কমিউনিকেটিং এক্সট্রা টেরেসট্রিয়াল ইন্টেলিজেন্ট সিভিলাইজেশনস’ পদ্ধতি বিবেচনা করে।

আমরা যেমন রেডিও সিগন্যাল মহাকাশে পাঠিয়ে দীর্ঘদিন যাবত ভিনগ্রহবাসীর উত্তরের অপেক্ষায় আছি, তেমনি অন্য গ্রহের প্রাণীরাও একইভাবে হয়তো সেই চেষ্টা চালাচ্ছে, বলছেন গবেষকরা। এই গবেষণার মূল গবেষক নটিংহাম ইউনিভার্সিটির প্রফেসর ক্রিস্টোফার কনসেলাইস ব্যাপারটি ব্যাখ্যা করে বলেছেন, ‘আমাদের ধারণা পৃথিবীতে যেমন ৫ কোটি বছরে বুদ্ধিমান প্রাণীর উৎপত্তি হয়েছে, তেমনি আমাদের গ্যালাক্সিতে কয়েক ডজন এমন গ্রহ আছে, যেখানে পৃথিবীর মতো বুদ্ধিমান প্রাণী থাকতে পারে। আমরা অ্যাস্ট্রো বায়োলজিক্যাল কোপার্নিক্যাল লিমিট পদ্ধতি বিবেচনা করে এ দাবি করছি।’

গবেষকদের মতে, পৃথিবীর মতো বসবাসযোগ্য কোনো গ্রহে যদি জীবন উৎপত্তির সব সুযোগ থাকে, তাহলে গ্রহটি তার আকার ধারণ করার পর সেখানে ৪.৫ থেকে ৫.৫ বিলিয়ন বছরের মধ্যে অন্য গ্রহের প্রাণীদের সঙ্গে যোগাযোগ তৈরি করার মতো বুদ্ধিমান প্রাণীর উৎপত্তি হবে। আর এই সূত্র বিবেচনা করেই বিজ্ঞানীরা এখন বলছেন আমাদের গ্যালাক্সিতে ৩৬টি গ্রহে বুদ্ধিমান প্রাণী থাকতে পারে। এই হিসাবটাও করা হয়েছে আমাদের পৃথিবীবাসী গত ১০০ বছরে যে উন্নতি করেছে, তার ওপর ভিত্তি করে। তবে গবেষকরা এটাও বলেছেন যে, এসব বুদ্ধিমান সভ্যতা গ্যালাক্সির সব জায়গায় সঠিক যদি দূরত্বে থাকে তাহলে সে হিসেবে আমাদের সবচেয়ে কাছের সভ্যতাটা আছে ১৭ হাজার আলোকবর্ষ দূরে। এই দূরত্ব পাড়ি দিয়ে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা বৈজ্ঞানিক বিবেচনায় সম্ভব না।