বিলস এর উদ্যোগে ২৪০০ শ্রমজীবী মানুষের মাঝে খাদ্য সহায়তা বিতরণ

কোভিড-১৯ ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকদের পাশে দাঁড়াতে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজ-বিলস ড্যানিশ ট্রেড ইউনিয়ন ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি (ডিটিডিএ) এর সহায়তায় ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন সেক্টরের শ্রমিকের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বৃহস্পতিবার বিকালে ৩ টায় শ্রম ভবন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

বিলস চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান সিরাজের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, এমপি। এছাড়া বাংলাদেশে নিযুক্ত ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইনি এসট্রাপ পিটারসেন, বিলস মহাসচিব ও নির্বাহী পরিচালক নজরুল ইসলাম খান, জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি ফজলুল হক মন্টু, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, জাতীয় শ্রমিক জোট বাংলাদেশ এর সাধারণ সম্পাদক নইমুল আহসান জুয়েল, বাংলাদেশ লেবার ফেডারেশন এর সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট দেলোয়ার হোসেন খান সহ জাতীয় ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে খাদ্য সামগ্রী বিলস সহযোগী ১৩টি জাতীয় ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশনের কাছে হস্তান্তর করা হয় এবং পরবর্তীতে ২৪০০ শ্রমিকদের মাঝে বিতরণ করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, এমপি বলেন, বিলস এর উদ্যোগে ও ডিটিডিএ’র সহায়তায় যে খাদ্য সাহায্য করা হয়েছে তা শ্রমজীবি মানুষের জন্য সহায়ক হবে। স্বাধীনতা যুদ্ধে ডেনমার্ক সরকারের বাংলাদেশের প্রতি অকুন্ঠ সমর্থন ছিল উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ড্যানিশ সরকারের সকল সহযোগিতার মধ্যে দিয়ে এ বিষয়টি সব সময়ই প্রতিফলিত হয়। বাংলাদেশ ডেনমার্ক সরকারের এই সহযোগিতার কথা কখনও ভুলবে না বলে তিনি উল্লেখ করেন। শ্রমজীবি মানুষের জন্য বিল্স এর শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের প্রশংসা করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিলস সব সময় ট্রেড ইউনিয়নের সক্ষমতা উন্নয়নে কাজ করছে।

উইনি এসট্রাপ পিটারসেন ডিটিডিএ’র সহযোগিতাকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষের পাশে ডেনমার্ক সরকার সব সময়ই থাকতে চায়। তিনি বলেন, বাংলাদেশে শ্রমক্ষেত্রে সংঘটিত সমস্যা সমাধানে ত্রিপক্ষীয় উদ্যোগকে ডেনমার্ক সরকার ও ট্রেড ইউনিয়ন সবসময়ই স্বাগত জানায় এবং এ ক্ষেত্রে সম্ভাব্য সকল সহযোগিতা করতে চায়। তিনি আশা করেন করোনা পরিস্থিতির পরে সকল শ্রমজীবী মানুষ কর্মক্ষেত্রে প্রত্যাবর্তন করতে পারবে।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, বিলস ডিটিডিএ’র সহযোগিতার ফলেই এই খাদ্য সাহায্য কার্যক্রমটি সফলভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছে। তিনি এ জন্য ডিটিডিএ’র প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

অনুষ্ঠানে এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে শ্রমিক লীগের সভাপতি ফজলুল হক মন্টু বলেন, বিলস এর উদ্যোগে এবং ডিটিডিএ’র সহায়তায় সীমিত আকারের এই খাদ্য সাহায্য শ্রমিকদের দুর্দশা কিছুটা হলেও লাঘব করবে এবং এতে অণুপ্রানিত হয়ে অন্যান্য সংগঠনও এগিয়ে আসবে বলে আশা করা যায়।

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক শিবনাথ রায় বলেন, ড্যানিশ সরকার বিভিন্নভাবে বাংলাদেশের উন্নয়নে সহায়তা করছে, বিশেষ করে তাদের সহায়তায় প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শ্রম পরিদর্শকদের দক্ষতা উন্নয়ন হচ্ছে। তিনি আশা করেন এ ধরণের সহযোগিতা পরবর্তীতে উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাবে এবং এক্ষত্রে তিনি ডেনমার্ক সরকারকে বাংলাদেশের বড় বন্ধু বলে উল্লেখ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে মো. হাবিবুর রহমান সিরাজ ডিটিডিএর এই উদ্যোগের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে বলেন, ভবিষ্যতে ডেনমার্কের ট্রেড ইউনিয়ন এবং সরকার বাংলাদেশের শ্রমজীবি মানুষের প্রতি এই সহযোগিতা প্রদান অব্যাহত রাখবে বলে তার বিশ্বাস।

উল্লেখ্য, শ্রমজীবী মানুষের অধিকার নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে শ্রমবান্ধব নীতি নির্ধারণ ও যুগোপযোগী শ্রম আইন প্রণয়ন, সুষ্ঠু শিল্পসম্পর্ক গড়ে তোলার ক্ষেত্রে ট্রেড ইউনিয়নের সক্ষমতা বৃদ্ধি, শ্রমিকের পেশাগত স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ এবং শিল্পমালিক, ট্রেড ইউনিয়ন ও সরকারের মধ্যে সামাজিক সংলাপকে কার্যকর করার ক্ষেত্রে দুই দশকের অধিক সময় ধরে কাজ করে যাচ্ছে বিলস ।

You Might Also Like