বাংলাদেশকে ভয়মুক্ত করুন : জাতিসংঘ

বিদেশি দুই নাগরিক হত্যার নিন্দা জানিয়ে খুনিদের খুঁজে বের করার আহবান জানিয়েছে জাতিসংঘ। নিউ ইয়র্ক সময় সোমবার জাতিসংঘের মুখপাত্র কর্তৃক প্রেরিত এক বিবৃতিতে এই নিন্দা জানানো হয়।

ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, জাতিসংঘ আশা প্রকাশ করছে যে, বাংলাদেশ সরকার অবিলম্বে হত্যাকারীদের খুঁজে বের করে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নেবে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে দুই বিদেশি হত্যার পরবর্তী ঘটনাবলী এক সপ্তাহ কাল পর্যবেক্ষণের পর গতকাল জাতিসংঘ এই প্রতিক্রিয়া জানালো।

এর আগে রাজধানী ঢাকার ডিপ্লোমেটিক জোনে ২৮ সেপ্টেম্বর ইতালিয়ান নাগরিক তাবেলা সিজার দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত হন এবং পরবর্তীতে আইএস এই খুনের দায়িত্ব স্বীকার করে। ওই সময় জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭০তম অধিবেশনে যোগদান উপলক্ষে বিশ্বের প্রায় ১৬০টি দেশের রাষ্ট্র বা সরকার প্রধানদের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও নিউ ইয়র্কে অবস্থান করছিলেন। এছাড়া ওই সময় সাধারণ পরিষদের উচ্চ পর্যায়ের বিতর্ক নিয়ে জাতিসংঘ সচিবালয়ের ব্যস্ততা ছিল তুঙ্গে। এই ব্যস্ততার মধ্যেও বাংলাদেশে ইতালিয়ান নাগরিক হত্যার পর আইএস-এর দায় স্বীকার নিয়ে এক প্রতিক্রিয়ায় জাতিসংঘের মুখপাত্র এই প্রতিনিধিকে বলেন, আমরা সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি।

পরবর্তীতে ইতালীয় নাগরিক খুনের কয়েকদিনের মাথায় গত ৩ অক্টোবর খুন হন জাপানি নাগরিক হোসি কোনিও এবং এই খুনেরও দায়িত্ব স্বীকার করে বিবৃতি দেয় আইএস। এরই পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশ হিসেবে সুনাম অর্জনকারী বাংলাদেশে উগ্রপন্থি জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস-এর সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ বিষয়ে জাতিসংঘের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে সোমবার জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্রের অফিস এক লিখিত বিবৃতিতে উপরোক্ত প্রতিক্রিয়া জানায়। জাতিসংঘের এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর মুখপাত্র এরি কানেকো কর্তৃক প্রেরিত ওই বিবৃতিতে বাংলাদেশকে ভয়মুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করার আহবান জানানো হয় যাতে দেশটিতে বসবাসকারী সকল মানুষ বাক-স্বাধীনতাসহ অন্য সকল মানবাধিকার নির্বিঘ্নে উপভোগ করতে পারে এবং ভয়মুক্তভাবে চলাফেরা করতে পারে।