‘প্রধানমন্ত্রীকে উকিল নোটিস দিয়ে খালেদা নিজের ক্ষতি করেছেন’

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উকিল নোটিস পাঠিয়ে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া নিজেরই ক্ষতি করেছেন। এখন কেঁচো খুড়তে সাপ বের হয়ে আসবে।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে আসামের অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মাসহসহ আট সদস্যের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া তার ছেলেকে দিয়ে দুর্নীতি করিয়েছেন। তার দুর্নীতির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে, সাজাও হয়েছে। ফলে সবার কাছে পরিষ্কার- তিনিই দুর্নীতি করেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উকিল নোটিস পাঠিয়ে নিজেরই ক্ষতি করেছেন। এখন তার যত দুর্নীতি বের হয়ে আসবে।

এ সময় তিনি আল-জাজিরা টেলিভিশনে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে প্রচারিত সংবাদের একটি ভিডিও ক্লিপ সাংবাদিকদের দেখান।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, আল-জাজিরা টেলিভিশনে তার (খালেদা জিয়া) দুর্নীতির বিরাট রিপোর্ট প্রচারিত হয়েছে। এটা তো এখন সবার মোবাইলে আছে।

এর আগে কোনো প্রধানমন্ত্রীকে এমন উকিল নোটিস দেওয়া হয়েছিল কি না এবং এটা আপনারা কীভাবে মোকাবিলা করবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, উকিল নোটিস দিয়েছে তো কী হয়েছে? বরং উকিল নোটিস দেওয়ার জন্য তাকে যারা পরামর্শ দিয়েছে তারা খালেদা জিয়ার ক্ষতি করেছে।

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে মন্ত্রী বলেন, সেখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নির্বাচিত হতে হবে, এই টেনডেনসি (প্রবণতা) আমাদের নেই। ২০১৩ সালে আওয়ামী লীগ পাঁচ সিটি করপোরেশনে হেরেছিল। ১৯৯১ সালে আমি দুই সিটে জিতে একটি সিট ছেড়েছিলাম। সেখানে জামানত হারানো প্রার্থী আমার সাথে হেরেও উপ-নির্বাচনে জিতেছিল। আবার আমাদের শাসনামলে বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ ও জমির উদ্দিন সরকার তারা বগুড়ায় উপ-নির্বাচনে জিতেছে। আমরা পরিষ্কার বলতে চাই, বিএনপিই নির্বাচনে কারচুপির আশ্রয় নেয়। রংপুরে যেই নির্বাচিত হোক তাকে বরণ করে নেওয়া হবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, অনেক সময় না বুঝে অনেক গণমাধ্যম ভুল তথ্য দিয়ে নিউজ প্রকাশ করে। ফলে বাজার আরো অস্থিতিশীল হয়ে যায়। অধিকাংশ পণ্যের দাম কম থাকা সত্ত্বেও একটা পণ্য বিশেষ করে পেঁয়াজের দাম নিয়ে বেশি লেখে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে পেঁয়াজের উৎপাদন, আমদানি ও চাহিদার যেসব তথ্য দেওয়া হয়, সেগুলো সঠিক না। এবার বাংলাদেশ ও ভারত দুই দেশেই পেঁয়াজের উৎপাদন কমেছে। তাই দুই দেশেই পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। তবে এখন পেঁয়াজের মৌসুম শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে ভারতের কোনো কোনো এলাকায় দাম কমতে শুরু করছে।

খুব দ্রুতই পেঁয়াজের দাম স্বাভাবিক হবে বলে জানান তিনি।