প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে সরে গেল যুক্তরাষ্ট্র

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় ১৮৭ দেশ স্বাক্ষরিত প্যারিস চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকেলে তিনি এ ঘোষণা দিয়েছেন।

ট্রাম্প জানিয়েছেন, এই চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের ওপর অতিরিক্ত করের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাই, পরবর্তীতে ‘ন্যায্য’ চুক্তির জন্য তিনি বিশ্ব নেতাদের সাথে আলোচনায় বসবেন।

২০১৫ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার নেতৃত্বে ১৮৭টি দেশ প্যারিস চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছিল। চুক্তিতে বলা হয়েছে , বৈশ্বিক উষ্ণতার মাত্রা তারা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কম রাখবে; এমনকি দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি নামিয়ে আনত চেষ্টা করবে।

বৃহস্পতিবার ট্রাম্প বলেছেন, ‘ আমেরিকা ও এর জনগণকে রক্ষার গুরু দায়িত্ব পালন করতে যুক্তরাষ্ট্রকে প্যারিস চুক্তি থেকে প্রত্যাহারের ঘোষণা দিচ্ছি। তবে প্যারিস চুক্তি অথবা যুক্তরাষ্ট্র ও এর বাণিজ্য, শ্রমিক, জনগণ ও করদাতাদের জন্য ন্যায্য হয় এমন কোনো নতুন আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্র অংশ নেবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা বের হয়ে যাচ্ছি। তবে আমরা আলোচনা শুরু করব এবং দেখব আমরা কোনো ন্যায্য চুক্তি করতে পারি কি না। আমরা যদি সেটা পারি তাহলে বেশ ভাল। আর যদি না পারি তাহলেও ভাল।’

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মনে করছেন, প্যারিস চুক্তির কারণে যুক্তরাষ্ট্র অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে, কিন্তু লাভবান হবে অন্য দেশ। এ চুক্তিতে মার্কিনিদের ওপর অতিরিক্ত করের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তার দাবি, এই চুক্তির কারণে যুক্তরাষ্ট্রের জিডিপিতে ৩ ট্রিলিয়ন ডলার ক্ষতি হবে এবং চাকরি হারাবে প্রায় ৬৫ লাখ মানুষ।

ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। তিনি বলেছেন, এর মাধ্যমে ‘ট্রাম্প প্রশাসন ভবিষ্যতকে অস্বীকার করলো।’

সিনেটের ডেমোক্রেট দলের নেতা চাক সুমেখার বলেছেন, এই সিদ্ধান্ত ‘একবিংশ শতাব্দির সবচেয়ে বাজে নীতি। কারণ এর মাধ্যমে আমাদের অর্থনীতি, পরিবেশ ও বৈশ্বিক অবস্থানের ব্যাপক ক্ষতি হবে।’

ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ফ্রান্স, জার্মানি ও ইতালি এক যৌথ বিবৃতিতে প্যারিস চুক্তির বিষয়ে ট্রাম্পের নতুন আলোচনার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে।