নিউ ইয়র্কে যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র যুবদল’গত ২৯ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সিটির জ্যাকসন হাইটসে দিনব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে দিবসটি পালন করা হয়। বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে নেতাকর্মীদের সরব উপস্থিতিতে উৎসবমুখর পবিবেশে বেলুন, পায়রা ও পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে কর্মসূচীর আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু হয়।

বেলা ১২টায় শুরু হয় ভার্চুয়াল আলোচনা সভা। এতে সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী। পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ আহমদ। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, যুবদলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি জননেতা সাইফুল আলম নীরব।  প্রধান বক্তা ছিলেন, যুবদল কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক জননেতা সুলতান সালাহউদ্দীন টুকু। ভার্চুয়াল সভায় উপস্থিত ছিলেন, যুবদল কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির দপ্তর সম্পাদক কামরুজ্জামান দুলাল, যুবদল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সিনিয়র সহ সভাপতি এমডি শরীফ হোসেন। বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র যুবদল ও নিউইয়র্ক ষ্টেট যুবদলের নেতৃবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাইফুল আলম নীরব বলেন, দেশে শাসনের নামে চলছে স্বৈরচারী দু:শাসন। প্রতিবাদ করতে গেলে হামলা মামলা আর গুম। এক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে জাতীয়তাবাদী যুবদলের কর্মীরা। তিনি দেশ ও প্রবাসের যুব সমাজকে ঐক্যবদ্ধ ফ্যাসিষ্ট হাসিনা সরকার বিরোধী আন্দোলন আরো শক্তিশালী করার আহবান জানান।

প্রধান বক্তা সুলতান সালাহউদ্দীন টুকু বলেন, যুবদল শহীদ রাষ্ট্র জিয়াউর রহমানের দল। বাংলাদেশে বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া  এবং জনপ্রিয় নেতা তারেক রহমান। আর সবচেয়ে বেশী ঘৃনিত নেত্রী স্বেরাচারী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠার পর থেকে যুবদল নেতাকর্মীদেরকে বিভিন্ন ভাবে মুল্যায়ন করা হয়েছে। এখন আমাদের প্রয়োজন দেশ গড়ার কাজে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা। যুবদল দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া  এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ। যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্ব দলকে শক্তিশালী করতে সকল সহযোগিতার প্রতিশ্রæতি দেন তিনি।

অন্যান্য বক্তারা বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে অবৈধ আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘটিয়ে দেশে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা করা হবে এবং জনগণকে তাদের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনতে যুবদল অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে কাজ করবে।

দ্বিতীয় পর্ব প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভা শুরু হয় দুুপুর ২টায় জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি হলে। এতে সভাপতিত্ব করেন উদযাপন কমিটির আহবায়ক ও যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান। পরিচালনা করেন উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ও নিউইয়র্ক ষ্টেট যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মো: রেজাউল আজাদ ভ‚ইঁয়া। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লু, প্রধান বক্তা ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি গিয়াস আহমেদ। আরো বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক হেলাল উদ্দিন, সাবেক কোষাধ্যক্ষ আবুল হাশেম শাহাদাৎ, ইন্টার স্টেট বিএনপি সভাপতি কাজী আজম, ও সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ আহমেদ, বিএনপি নেতা এবাদুর রহমান চৌধুরী, ফয়েজ আহমেদ চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সহসভাপতি আহবাব চৌধুরী খোকন, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা সাইফুর খান হারুন, তারেক রহমান আর্ন্তজাতিক মুক্তি পরিষদের সভাপতি পারভেজ সাজ্জাদ, ব্রঙ্কস বিএনপির সভাপতি আব্দুর রহিম, বিএনপি নেতা শরীফ খালিশদার, ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) সাবেক সহ সভাপতি এজিএম হাসান জাহাঙ্গীর, উদযাপন কমিটির যুগ্ম আহবায়ক ও যুবনেতা মো: আবুল কাশেম, প্রধান সমন্বয়কারী আমানত হোসেন আমান, সমন্বয়কারী খলকুর রহমান, উত্তম বনিক, বিএম বাদশাহ, আহসান উল্যাহ মামুন, ইঞ্জিনিয়ার মাইন উদ্দীন, হাসান আহমেদ, আবু চৌধুরী, মনিরুল ইসলাম মনির, আশরাফ হোসেন, মিজানুর রহমান, শামীম তালুকদার, অহিদুজ্জামান নিলু, মাসুদ রানা, জাহাঙ্গীর জয়, চৌধুরী মুমিত তানিম, মো: মহসিন মিয়া লাল, ফাহিম শাকিল অপু, শাহবাজ আহমেদ, সুমন আহমেদ, সিদ্দিক আহমেদ, ফাহিম রহমান, মো: আল আমিন, সারওয়ার আহমদ, জাকারিয়া আলম, এবিএম ফারুক আহমেদ, সাইকুল আলম, মনির আহমেদ, লায়েক ইসলাম, মো: সেলিম আহমেদ, টিটু চৌধুরী, মোস্তফা মিয়া, আনোয়ার হোসেন, হাবিবুল্লাহ, সোহেল আহমেদ, হাজী ইকবাল হক, মো: শাহজাহান সাজু,  সারোয়ার জাহান জীবন, মফিজুল ইসলাম, সালেক সানি, জুয়েল আহমদ, নূরে আলম, আহমেদ সালমানসহ আরো অনেকে।