নারীর চুল কেটে, ছ্যাঁকা দিয়ে অপহরণকারী বলে চালানোর চেষ্টা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এক নারীর চুল কেটে, ছ্যাঁকা দিয়ে শিশু অপহরণকারী বলে চালানোর চেষ্টা করা হয়েছে।

এ ঘটনায় মোস্তাক আহমেদ ফয়সাল নামে প্রধান অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার রাতে পৌর এলাকার কাউতুলিতে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত ফয়সাল একজন চিহ্নিত অপরাধী। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় অন্তত ১৬টি মামলা রয়েছে।

নির্যাতনের শিকার ওই নারী জানান, তার বাড়ি হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার হরষপুর এলাকায়। ফয়সালের বাড়িও ওই এলাকাতেই। ফয়সাল বিয়ে করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কাউতলীতে। পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে শনিবার দুপুরে ফয়সাল তাকে জানায়, তার বউয়ের সঙ্গে ঝামেলা হয়েছে। বিষয়টি সমাধানের জন্য বাসায় আসতে হবে। ফয়সাল ওই নারীকে ফোন করে আসতে বলেন।

ওই নারীকে নিয়ে ফয়সাল কাউতলীতে শ্বশুরের বাসায় নিয়ে যান। ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি করেন। ওই নারী তার ভাইয়ের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকাও এনে দেন। তার কাছে থাকা নগদ চার হাজার টাকা ও মোবাইল ফোন ফয়সাল জোর করে নিয়ে নেন। এরপর খালি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেন। আরো টাকার জন্য শুরু করেন নির্যাতন। তার চুল কেটে দেয়া হয়। লোহার চাসনি নিয়ে গরম ছ্যাঁকা দেয়া হয়।

এক পর্যায়ে ৯৯৯ নম্বরে কল করে শিশু অপহরণকারীকে আটক করা হয়েছে বলে জানান ফয়সাল।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ওসি মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন বলেন, ‘৯৯৯ থেকে ফোন পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। সেখানে গিয়ে ওই নারীর ওপর নির্যাতনের বিষয়টি দেখতে পেয়ে ফয়সালকে আটক করি।’

তিনি জানান, প্রথামিকভাবে প্রমাণ পাওয়া গেছে, ওই নারীকে ফাঁসানোর জন‌্য পরিকল্পিতভাবে এ কাজ করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে নগদ টাকা ও স্ট্যাম্প উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।