জুতা পায়ে শহীদ মিনারে, আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

শহীদ মিনারে অস্থায়ী মঞ্চে জুতা পরে ওঠার অভিযোগে কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলা মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. জামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

সোমবার কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের ৭নং আমলি আদালতে মামলাটি করেন উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা মুজাফফর হোসেনের ছেলে মো. নজির। ওই মামলায় ফুটবল টুর্নামেন্টের সভাপতিকেও আসামি করা হয়।

৭নং আমলি আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট চন্দন কান্তি নাথ মামলাটি আমলে নিয়ে থানায় রেকর্ড করে ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে আদালতকে অবহিত করতে চান্দিনা থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

মো. জামাল উদ্দিন চান্দিনা উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের পানিপাড়া গ্রামের মৃত বাদশা মিয়ার ছেলে। তিনি মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি। মামলার অপর আসামি হলেন- ভোমরকান্দি গ্রামের ওমর আলীর ছেলে মো. শাহজাহান।

আদালতে দায়ের করা মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ১৩ নভেম্বর চান্দিনা উপজেলার ভোমরকান্দি উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার আয়োজন করা হয়।

ওই খেলায় বিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে অস্থায়ী মঞ্চ তৈরি করে জুতা নিয়ে উঠে খেলোয়াড়দের পুরস্কার বিতরণ এবং প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. জামাল উদ্দিন।

মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শাহজালাল মিঞা শিপন জানান, ভাষাশহীদের স্মরণে নির্মিত স্থায়ী শহীদ মিনারে মঞ্চ তৈরি ও জুতা নিয়ে ওঠা অত্যন্ত দুঃখজনক।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন ইউনিয়ন সভাপতি হয়ে তার এহেন কার্যাদেশের জন্য প্রাণদানকারী সব শহীদের অবমাননার শামিল।

একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বাদী হয়ে মামলা করায় বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে থানাকে এফআইআর করার নির্দেশ প্রদান করেন।

এ ব্যাপারে মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. জামাল উদ্দিন বলেন, আমরা মুক্তিযোদ্ধার পক্ষের লোক। আমরা শহীদ মিনার অবমাননা করতে যাব কেন?

সেদিন শহীদ মিনারটি কাপড়ে বেড়া দিয়ে সামনের অংশে মঞ্চ তৈরি করা হয়েছিল। আর সেই মঞ্চে আমি একা নই, চান্দিনা থানার তিন পুলিশ অফিসারও উপস্থিত ছিলেন।