গণতন্ত্রের ভিত রচনা করেছিলেন এরশাদ

গণতন্ত্র শুধু এক দিনের ভোটের অধিকার নয় আমাদের রাষ্ট্রীয় জীবনের সব ক্ষেত্রে গণতান্ত্রিক নিয়ম-নীতি ও আদর্শের প্রতিফলন ঘটাতে হবে। তৃণমূল পর্যায় থেকে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায় পর্যন্ত জনগণের কাছে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে।

নূর হোসেন দিবস বা গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে রোববার বিকেলে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ কথা বলেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তার শাসনামলেই স্বৈরাচার পতন আন্দোলনে পুলিশের গুলিতে নিহত হন নূর হোসেন।

এরশাদ বলেন, ‘এদেশের মানুষ গণতন্ত্রের প্রতি অকৃত্রিমভাবে শ্রদ্ধাশীল। তাই গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার দিনটিকে শ্রদ্ধার সাথে সবাই স্মরণ করে। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার পথে প্রধান অন্তরায় হচ্ছে প্রতিহিংসা পরায়ণতা।’

বিবৃতিতে এরশাদ আরো বলেন, ‘১৯৮৬ সালের ১০ নভেম্বর মহান জাতীয় সংসদে দেশের রাষ্ট্রপতি হিসেবে ভাষণ প্রদান করে সামরিক শাসন চির অবসানের ঘোষণা দিয়ে আমি বলেছিলাম জনগণের প্রত্যাশিত গণতন্ত্রের ভিত আজ রচিত হলো যা কেউ কোনোদিন নস্যাৎ করতে পারবে না। সেই গণতন্ত্র আজো অব্যাহত রয়েছে বলে গণতন্ত্রকামী জনগণের কাছে ১০ নভেম্বর দিনটি গণতন্ত্র দিবস হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে। এই দিনে আমি দেশের সকল গণতন্ত্রপ্রেমী জনগণের প্রতি শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি।’

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আমাদের মহান মুক্তি সংগ্রামের প্রধান লক্ষ্য ছিল স্বাধীনতা অর্জন এবং গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা। আমাদের সেই কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা অক্ষুণ্ণ আছে এবং চিরকাল থাকবে। কিন্তু গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা ব্যাহত হয়েছে। তবে ১৯৮৬ সালের ১০ নভেম্বর আমি যে গণতন্ত্রকে প্রতিষ্ঠা করেছি কোনো ষড়যন্ত্র আর তাকে ব্যাহত করতে পারেনি এবং আমি দৃঢ়তার সাথে বলতে পারি, এই গণতন্ত্র অনাদিকাল পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। গণতন্ত্র দিবসে এটাই হোক সকলের অঙ্গীকার।’

দেশের সব রাজনৈতিক শক্তিকে হিংসা হানাহানি-সংঘাত-বিসর্জন দিয়ে পরমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে ঊর্ধ্বে তুলে ধরার আহ্বান জানান তিনি।

উল্লেখ্য, স্বৈরাচারের পতন ঘটিয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য ১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর তৎকালীন স্বৈরাচারী সরকারের বিরুদ্ধে রাজপথে লড়াই করতে গিয়ে নূর হোসেন পুলিশের গুলিতে শহীদ হন। নূর হোসেনের রক্তদানের মধ্য দিয়ে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন তীব্রতর হয় এবং অব্যাহত লড়াই-সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর এরশাদের স্বৈরাচার সরকারের পতন ঘটে।

You Might Also Like