ইরাকে সশস্ত্র ড্রোন পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র

ইরাকে সশস্ত্র ড্রোন পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। পেন্টাগন-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ইরাকে অবস্থিত মার্কিন সামরিক উপদেষ্টাদের রক্ষা করবার জন্যই পাঠানো হয়েছে এইসব ড্রোন।

এছাড়া ইরাকে যে বিমানগুলো পাঠানো হয়েছে তার মধ্যে মানবহীন বিমানের পাশাপাশি মানববাহী বিমানও রয়েছে। এই বিমানগুলো ইরাকের বিভিন্ন অংশে দিনে অন্তত ৩০-৪০ বার পর্যবেক্ষণ চালাবে।

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগের পক্ষ থেকে এক ঘোষণা দিয়ে জানানো হয়েছে ইরাকে মার্কিন ড্রোন পাঠানোর খবর।

পেন্টাগনের প্রেস সেক্রেটারি জন কিরবি বলেছেন, ইরাকে তাদের ড্রোন পাঠানোর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে, যে কোনোভাবেই হোক, প্রয়োজনে বল প্রয়োগ করে হলেও ইরাকে অবস্থিত মার্কিন উপদেষ্টাদের রক্ষা করা।

ইরাকের সংকট সমাধানেই এসব ব্যক্তিদের সেখানে পাঠানো হয়েছিল।

মার্কিন এই ঘোষণা আসার কিছু সময় আগেই ইরাকে নতুন একজন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দেবার জন্য তাগিদ দিয়েছিলেন দেশটির শিয়া মুসলিম সম্প্রদায়ের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি আল সিস্তানি।

ইরাকে চলমান রাজনৈতিক সংকট মোকাবেলায় জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে একটি সরকার গঠনের অংশ হিসেবে নতুন প্রধান মন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি ও স্পিকার নিয়োগ দেবার জন্য জোড় দিয়েছেন তিনি।

সুন্নি জঙ্গিরা লড়াই করে ইরাকের একটি বিরাট অংশ দখল করে নিয়েছে। জঙ্গীদেরকে নিবৃত্ত করতেই ইরাক সরকারের সাথে কাজ করছে মার্কিন সরকার।

ইরাকে ড্রোন পাঠালেও এখনও সেদেশে বিমান হামলা করার অনুমতি দেননি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। তবে, গত সপ্তাহে মি: ওবামা বলেছিলেন, প্রয়োজন হলে নির্ধারিত কিছু লক্ষ্যে তারা বিমান হামলা করবে।