সামরিক বাজেট নিয়ে চাপের মুখে ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সামরিক বাজেট ৫৪ বিলিয়ন ডলার বাড়াতে চান। এ নিয়ে চাপের মুখে পড়তে হচ্ছে তাকে।

এর আগে ঘোষণা দিয়েছিলেন, ‘ঐতিহাসিক’ সামরিক ব্যয় বাড়াতে আগ্রহী তিনি। তবে তার এ ব্যয় বাড়ানোর পরিকল্পনা কংগ্রেসে অনুমোদিত হবে। রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের মধ্যেই এ নিয়ে বিরোধ রয়েছে।

ইরাক ও আফগানিস্তানের যুদ্ধে জড়ানো এবং বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী সামরিক শক্তির মর্যাদা ধরে রাখতে সামরিক ব্যয় বাড়িয়ে মোট বাজেট ৬০৩ বিলিয়ন ডলার করার প্রস্তাব দেয় পেন্টাগন। তবে আগের এ প্রস্তাবের চেয়েও বেশি বাজেট বাড়াতে আগ্রহী ট্রাম্প প্রশাসন।

তবে সামরিক ব্যয় বাড়ানোর এ প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছে ডেমোক্রেটিক আইনপ্রণেতারা। তাদের ভাষ্য, এত পরিমাণ সামরিক ব্যয় বাড়ালে অভ্যন্তরীণ কাজে প্রভাব পড়বে। বিশেষ করে পরিবেশ রক্ষা ও শিক্ষা ক্ষেত্রের কর্মসূচি বাধাগ্রস্ত হবে।

ট্রাম্পের সামরিক ব্যয় বাড়ানোর পরিকল্পনার সঙ্গে যুক্ত হোয়াইট হাউসের এক কর্মকর্তা কনফারেন্স কলের মাধ্যমে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে সামরিক ব্যয় ৫৪ বিলিয়ন ডলার বা ১০ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। ২০১১ সালে কংগ্রেসে এ বাজেট বাড়ানোর যে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল, তার ওপর নতুন বাজেট বৃদ্ধির কথা বলা হয়েছে।

কিন্তু হোয়াইট হাউসের বাজেট পরিচালক মাইক মুলভানি জানিয়েছেন, প্রস্তাবিত বাজেট বাড়ার পর পেন্টাগনের মোট বাজেটের আকার হবে ৬০৩ বিলিয়ন ডলার। সাম্প্রতিক অর্থবছরগুলোতে পেন্টাগন ৫৮৪ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করছে। এর ওপর মাত্র ৩ শতাংশ বাড়ানোর পরিকল্পনা করা হয়েছে। তবে ২০১৬ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ওই বাজেটের মেয়াদ শেষ হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যস্ফীতি এখন ২ দশমিক ৫ শতাংশ। সামরিক বাজেট বাড়তে পারে এর তুলনায় কিছুটা বেশি।

পরিণতির জন্য আমেরিকা-দ.কোরিয়া দায়ী থাকবে: চীন

কোরীয় উপদ্বীপে মার্কিন অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা থাড মোতায়েন করার ফলে সৃষ্ট যেকোনো পরিণতির জন্য আমেরিকা ও দক্ষিণ কোরিয়াকে দায়ী থাকতে হবে। এর পাশাপাশি চীনের জন্য সৃষ্ট হুমকি মোকাবেলা ও নিজের নিরাপত্তা স্বার্থ রক্ষায় বেইজিং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গেং শুয়াং সোমবার এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেছেন। তিনি বলেন, “কোরিয়া প্রজাতন্ত্রের মাধ্যমে মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা থাড মোতায়েন করা হলে এ অঞ্চলের কৌশলগত ভারসাম্য মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এছাড়া, চীনসহ আঞ্চলিক দেশগুলোর নিরাপত্তা স্বার্থ দারুনভাবে অচলাবস্থায় পড়বে। থাড মোতায়েন কোরীয় উপদ্বীপে কোনো রকম শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় সহায়তা করবে না।”

দক্ষিণ কোরিয়ার বৃহৎ ব্যবসায়ী গ্রুপ ‘লোটে’ থাড মোতায়েনের জন্য জমি বরাদ্দ দিতে সিউল সরকারের সঙ্গে চুক্তি করেছে। বিনিময়ে দক্ষিণ কোরিয়া রাজধানী সিউলের কাছে একটি সামরিক স্থাপনা লোটে গ্রুপকে দেবে বলে রাজি হয়েছে। এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে চীন কড়া প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করল।

গত বছরের জুলাই মাসে দক্ষিণ কোরিয়া ও আমেরিকা থাড মোতায়েনের বিষয়ে একটি চুক্তি করে। উত্তর কোরিয়া, চীন ও রাশিয়া এ সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে আসছে। দেশগুলো বলছে, থাড মোতায়েন করা হলে আঞ্চলিক ভারসাম্যহীনতা ও কৌশলগত নিরাপত্তাহীনতা সৃষ্টি হবে।

দেশব্যাপী পরিবহন ধর্মঘটে জনদুর্ভোগ

সারা দেশে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষ।

দুর্ঘটনার জন্য দায়ী এক চালকের সাজার প্রতিবাদে খুলনা বিভাগে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট চলছিল রোববার থেকে। সোমবার অপর এক চালকের সাজার রায় হলে তারা দেশব্যাপী ধর্মঘটের ডাক দেয়।

এর ফলে রাজশাহী, খুলনা, যশোর, নড়াইল, কুষ্টিয়া, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, দিনাজপুর, সিলেট, গাজীপুর, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় যাত্রী ও পণ্যবাহী যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

ধর্মঘটের ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে মানুষ। যশোরের বেনাপোল স্থলবন্দরে পণ্যবাহী কয়েক শ ট্রাক আটকে রয়েছে। এতে বিপাকে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।

২০১১ সালে মানিকগঞ্জে তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহতের ঘটনায় বাসচালক জামির হোসেনের যাবজ্জীবন সাজার প্রতিবাদে রোববার খুলনা বিভাগের দশ জেলায় ধর্মঘট শুরু করে চালক-শ্রমিকরা।

সোমবার প্রশাসনের আশ্বাসে কর্মসূচি প্রত্যাহারের ঘোষণা এলেও পরে শ্রমিকনেতারা কর্মসূচি বহাল রাখার কথা বলেন। সাভারে ট্রাকচাপা দিয়ে এক নারীকে হত্যার দায়ে সোমবার ট্রাকচালক মীর হোসেনের ফাঁসির রায় দেওয়া হয় ঢাকার আদালতে। এরপর রাতে মতিঝিলে সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের এক বৈঠকে ধর্মঘটের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এর আগে সোমবার দুপুরে খুলনা সার্কিট হাউসের সম্মেলন কক্ষে বৈঠক শেষে খুলনার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ ফারুক হোসেন এবং খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন প্রেস ব্রিফিংয়ে সন্ধ্যা সাতটা থেকে বিভাগীয় পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলেও কেন্দ্রীয় কমিটি তা প্রত্যাখ্যান করে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের খুলনা বিভাগীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক শেখ শফিকুল ইসলাম মঞ্জু সোমবার রাত ১১টায় জানান, ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়নি। বিভাগীয় কমিশনারের অনুরোধে শুধু খুলনা জেলায় কিছুটা শিথিল করা হয়। বাকি ৯টি জেলায় ধর্মঘট চলমান ছিল। তবে রাত ৯টায় ঢাকায় মালিক সমিতি এবং শ্রমিকনেতাদের কেন্দ্রীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এই বৈঠকেই ধর্মঘট দেশব্যাপী করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ও খুলনা বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম বক্স দুদু জানান, মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে দেশব্যাপী পরিবহন ধর্মঘট আহ্বান করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ধর্মঘট প্রত্যাহারের বিষয়ে আলোচনা চলাকালে খবর আসে ঢাকার একটি আদালতে সাভারে সড়ক দুর্ঘটনা সংক্রান্ত মামলায় একজন চালককে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেওয়া হয়েছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে মালিক-শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ হয়ে দেশব্যাপী ধর্মঘট ডাকার সিদ্ধান্ত নেন।

বিদায়ী ম্যাচটি লাহোরে খেলতে চান আফ্রিদি

দীর্ঘ ক্যারিয়ারের পর ঘরের মাঠের দর্শকদের সামনে বিদায়ী ম্যাচটি খেলার স্বপ্ন থাকে অনেক ক্রিকেটারের। আফ্রিদিও এমন স্বপ্ন দেখছেন। কয়েকদিন আগেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলেছেন পাকিস্তানি এ অলরাউন্ডার।

পাকিস্তান সুপার লিগের ফাইনাল ম্যাচটি লাহোরে খেলেই সুন্দর একটি বিদায়ের প্রত্যাশায় রয়েছেন আফ্রিদি। মঙ্গলবার এ প্রসঙ্গে আফ্রিদি বলেন, ‘পিএসএলের ফাইনাল লাহোরে হওয়ার সিদ্ধান্তটি অসাধারণ এবং আমি সত্যিই ওটার দিকে তাকিয়ে আছি।’

এর আগে পাকিস্তানের প্রাক্তন তারকা ক্রিকেটার ইমরান খান পাকিস্তানে ফাইনাল আয়োজনকে পাগলামী বললেও তার সঙ্গে সুর মেলাতে চান না আফ্রিদি। ফাইনাল ম্যাচটি সফলভাবে আয়োজনের জন্য সকলের সহযোগিতা চাইছেন তিনি।

পাকিস্তান সুপার লিগে ৮ ম্যাচ শেষ ৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে রয়েছে আফ্রিদির দল পেশোয়ার জালমি। এর আগে কোয়েটা গ্ল্যাডিয়র্টের বিপক্ষে প্লে-অফে জিতে ফাইনালে পা রাখার কথা বলেছিলেন তিনি।

এছাড়া ফাইনাল জিতলে পেশোয়ারে গিয়ে জয় উদযাপন নিয়ে দলটির মালিক জাভেদ আফ্রিদি জানান, ‘ফাইনালে জিততে পারলে পেশোয়ার জালমি পেশোয়ারে যাবে এবং আর্মি পাবলিক স্কুলের বাচ্ছাদের সঙ্গে জয় উদযাপন করবে।’

এক সপ্তাহের যাচাই-বাছাইয়ের পর সোমবার পাঞ্জাবের সরকার জানিয়েছে পিএসএলের ফাইনাল লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামেই অনুষ্ঠিত হবে।

১৫ রানে ৭ উইকেট, ম্যাকগ্রার সেই বোলিং এই দিনেই

প্রথম ওভারের চতুর্থ বলেই উইকেট। পরের ওভারে কোনো উইকেট পাননি। এরপর নিজের টানা চার ওভারে একটি করে উইকেট। সপ্তম ওভারে দুই উইকেট। তখন গ্লেন ম্যাকগ্রার বোলিং ফিগার ৭-৪-১৫-৭!

২০০৩ ক্রিকেট বিশ্বকাপে আজকের এই দিনেই (২৭ ফেব্রুয়ারি) ৭ ওভারের একটা স্পেলে প্রতিপক্ষের ব্যাটিং লাইনআপ গুঁড়িয়ে দিয়েছিলেন ম্যাকগ্রা। অস্ট্রেলিয়ান গ্রেট নামিবিয়ার বিপক্ষে ১৫ রানে ৭ উইকেট নিয়েছিলেন। যেটি বিশ্বকাপ ইতিহাসের সেরা বোলিং।

পচেফস্ট্রুমের নর্থ ওয়েস্ট ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথমবার বিশ্বকাপে খেলতে আসা নামিবিয়ার বিপক্ষে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৩০১ রানের বড় সংগ্রহ গড়েছিল অস্ট্রেলিয়া। জবাবে ব্যাট করতে নামা নামিবিয়ার ইনিংসের শুরুতেই আঘাত হানেন ম্যাকগ্রা। তার করা ইনিংসের চতুর্থ বলেই স্লিপে রিকি পন্টিংকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ওপেনার বেরি বুর্গার।

চতুর্থ ওভারে ব্রেট লির বলে আরেক ওপেনার স্টিভেন সোয়ানপোয়েলও পন্টিংকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরের পথ ধরেন। এরপরই শুরু ম্যাকগ্রা-জাদু। নিজের তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ- টানা চার ওভারে তুলে নেন একটি করে উইকেট। সপ্তম ওভারে দুই উইকেট। তখন ম্যাকগ্রার বোলিং ফিগার ৭-৪-১৫-৭। ইনিংসের পরের ওভারে অ্যান্ডি বিকেল মেডেনসহ দুই উইকেট তুলে নিতেই শেষ নামিবিয়ার ইনিংস। ১৪ ওভারে নামিবিয়া অলআউট মাত্র ৪৫ রানে। ইনিংসে দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেন কেবল একজন!

১৫ রানে ৭ উইকেট নিয়ে বিশ্বকাপে নতুন বোলিং রেকর্ড গড়েন ম্যাকগ্রা। তিনি ভেঙে দেন ১৯৮৩ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে উইনস্টন ডেভিসের ৫১ রানে ৭ উইকেটের রেকর্ড। ম্যাকগ্রার রেকর্ড টিকে আছে এখনো। ওয়ানডে ইতিহাসেই এটি এখন তৃতীয় সেরা বোলিং। ১২ রানে ৭ উইকেট আছে পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদির, ২০১৩ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। আর ১৯ রানে ৮ উইকেট নিয়ে বিশ্ব রেকর্ডটা শ্রীলঙ্কার চামিন্দা ভাসের, ২০০১ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে।

আইসিসি’তে কিম জং-উনের বিচার করতে হবে: দ. কোরিয়া

উত্তর কোরিয়ার মানবাধিকার পরিস্থিতির জন্য দেশটির নেতা কিম জং-উনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের করার আহ্বান জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইউন বিউং-সি। তিনি সোমবার জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ আহ্বান জানান।

একইসঙ্গে তিনি উত্তর কোরিয়ার নেতার সৎ ভাই কিম জং-ন্যামের কথিত হত্যাকাণ্ডেরও নিন্দা জানান।

দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী দাবি করেন, উত্তর কোরিয়ার শত শত কর্মকর্তা বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের শিকার হচ্ছেন এবং সাধারণ মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে গণহারে। এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে না ধরে তিনি বলেন, “এই অপরাধ ও নির্যাতনের জন্য শেষ পর্যন্ত কে দায়ী সেকথা আমরা সবাই জানি।”

জাতিসংঘের পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে ইউন বলেন, উত্তর কোরিয়ার কারাগারগুলোতে বর্তমানে ১,২০,০০০ মানুষ বন্দি রয়েছে। তিনি আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালত বা আইসিসি’তে দেশটির কথিত মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিচার করার আহ্বান জানান।

ন্যাম হত্যায় অভিযুক্ত হচ্ছেন দুই নারী

উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং-উনের সৎভাই কিম জং-ন্যামের হত্যায় জড়িত দুই নারীর বিরুদ্ধে চার্জশিট দিতে যাচ্ছে মালয়েশিয়া পুলিশ।

মালয়েশিয়ার পুলিশ জানিয়েছে, বুধবার ওই নারীর বিরুদ্ধে হত্যা মামলার চার্জশিট দেওয়া হবে।
মালয়েশিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ আপান্দি আলী এক বার্তায় নিশ্চিত করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে হত্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে।

কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে ফ্লাইটের জন্য অপেক্ষমাণ কিম জং-ন্যামের মুখম-লে বিষ প্রয়োগ করে ইন্দোনেশিয়া ও ভিয়েতনামের এই দুই নারী।
তবে দুই নারীর দাবি, তারা মনে করেছিলেন, টেলিভিশনের কোনো কৌতুক অনুষ্ঠানের জন্য এমন কাজ করছিলেন।

ভিয়েতনামের নাগরিক ২৮ বছর বয়সি দোয়ান থি হুয়োং ও ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক ২৫ বছর বয়সি সিতি আয়শা ন্যামের হত্যায় যুক্ত ছিলেন বলে প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে। তারাসহ আরো ১০ জন এ হত্যা মামলায় অভিযুক্তের তালিকায় রয়েছে।

মালয়েশিয়া পুলিশ উত্তর কোরিয়ার চার নাগরিককে খুঁজছেন। দক্ষিণ কোরিয়া দাবি করেছে, এ চারজন উত্তর কোরিয়ার গুপ্তচর।

কিম জং-ন্যাম উত্তর কোরিয়ার শাসক হওয়ার প্রক্রিয়ার ব্যাপক সমালোচক। এ কারণে উত্তর কোরিয়া সরকার তাকে হত্যা করেছে বলে দাবি করে আসছে দক্ষিণ কোরিয়া।

ইকবালুর রহিমকে মন্ত্রিসভার অভিনন্দন

ওয়ার্ল্ড লিডারশিপ ফেডারেশন (ডব্লিউএলএফ) অ্যাওয়ার্ড পাওয়ায় জাতীয় সংসদের হুইপ ও দিনাজপুরের সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিমকে অভিনন্দন জানিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ইকবালুর রহিমকে অভিনন্দন জানিয়ে একটি প্রস্তাব গৃহিত হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ডব্লিউএলএফ অ্যাওয়ার্ড পাওয়ায় মন্ত্রিসভার বৈঠকের শুরুতে হুইপ ইকবালুর রহিমকে মন্ত্রিসভার পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানানো হয় এবং তার উদ্দেশ্যে একটি অভিনন্দন প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।

‘ইকবালুর রহিম দিনাজপুরে তার নির্বাচনী এলাকায় তৃতীয় লিঙ্গের মানুষের আবাসনের জন্য মানবপল্লি নির্মাণ, বয়োবৃদ্ধাদের জন্য বৃদ্ধাশ্রম নির্মাণসহ সামাজিক কর্মকাণ্ডে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় সোশ্যাল ইনোভেটর ক্যাটাগরিতে তাকে এই অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়েছে- বলেও জানান সচিব।

শফিউল আলম জানান, হিজড়াদের জন্য গড়ে তোলা মানবপল্লিতে ইতিমধ্যে ১২৫ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষকে পুনর্বাসিত করা হয়েছে। এ ছাড়া কর্মসংস্থানের জন্য বিভিন্ন প্রশিক্ষণ ও ঋণ প্রদান কর্মসূচির মাধ্যমে তিনি হিজড়াদের আর্থ-সামাজিক কর্মকাণ্ডের মূলধারায় পুনর্বাসন করেছেন। শুধু তাই নয়, ইকবালুর রহিম তার নির্বাচনী এলাকায় ২৫ জনের আবাসন বিশিষ্ট বৃদ্ধাশ্রম প্রতিষ্ঠা করে তিনি অবহেলিত বয়োবৃদ্ধদের পুনর্বাসন ও কল্যাণ সাধন করেছেন। সবকিছু বিবেচনা করেই ডব্লিউএলএফ তাকে পুরস্কৃত করে।

গত ২৩ ফেব্রুয়ারি সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে এক অনুষ্ঠানে ইকবালুর রহিমের হাতে এ সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়।

রাশিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিশেষ কৌঁসুলির দরকার নেই: ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগ প্রমাণ করার জন্য বিশেষ সরকারি কৌঁসুলি নিয়োগ দেয়ার প্রস্তাব সরাসরি নাকচ করে দিয়েছে হোয়াইট হাউজ।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান দুই দলের পক্ষ থেকেই অভিযোগ করা হয়েছে, ২০১৬ সালের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে কারসাজি করেছে রাশিয়া যার ফলে ট্রাম্প বিজয়ী হতে পেরেছেন।

হোয়াইট হাউজের প্রেস সচিব সিন স্পাইসার সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের রিপাবলিকান সদস্য ড্যারেল ইসা’র এ সংক্রান্ত বক্তব্য নাকচ করে দেন।
ইসা সম্প্রতি বলেছিলেন, ট্রাম্পের নিয়োগ করার অ্যাটর্নি জেনারেলের পরিবর্তে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপ প্রমাণের জন্য একজন স্পেশাল প্রসিকিউটর নিয়োগ দেয়া দরকার। তিনি অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশন্সকে এ সংক্রান্ত তদন্ত থেকে দূরে থাকার আহ্বান জানান।

এ সম্পর্কে হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র বলেন, প্রায় ছয় মাস ধরে একই গল্প শোনানো হচ্ছে কিন্তু কেউ এ সম্পর্কে কোনো প্রমাণ দিতে পারছে না। তিনি বলেন, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর পাশাপাশি প্রতিনিধি পরিষদ ও সিনেটের কমিটিগুলো নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার ভূমিকা নিয়ে তদন্ত করে যাচ্ছে।

তিনি প্রশ্ন করেন, এসব তদন্তে যখন কোনো কিছু পাওয়া যাচ্ছে না তখন এ ব্যাপারে অধিকতর তদন্ত করে আপনি কি করতে চান?

রাশিয়া এবং দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি করার ঘোষণা দিয়ে রিপাবলিকান এবং ডেমোক্র্যাট উভয় দলের তীব্র সমালোচনার মুখে রয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

‘মা রাজি থাকলে আরেকটা বিয়ে দিতাম’

অভিনেত্রী সোহিনী সরকার। টলিউডের বেশ পরিচিত মুখ তিনি। ‘ফড়িং’ সিনেমার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে পা রাখেন এই অভিনেত্রী। গুণী নির্মাতা সৃজিত মুখার্জির আলোচিত সিনেমা ‘রাজকাহিনি’সহ বেশ কিছু জনপ্রিয় সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি।

ব্যক্তিগত জীবনে একজন স্বাধীনচেতা নারী তিনি। প্রেম ভালোবাসা নিয়ে বরাবরই খোলামেলা কথা বলে থাকেন এই অভিনেত্রী। এক সময় লিভ টুগেটার করতেন সে খবরও কারো অজানা নয়।

এদিকে সোহিনীর বাবা-মা’র বিবাহ বিচ্ছেদ হয়েছে। তারা এখন আলাদা থাকেন। সম্প্রতি ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন তিনি। এ সময় অভিনয় ও ব্যক্তিগত বিষয় নিয়েও কথা বলেছেন সোহিনী। এ আলাপচারিতায় তার ব্যক্তিগত জীবনের পাশাপাশি বাবা-মায়ের বিচ্ছেদ প্রসঙ্গে সোহিনীকে প্রশ্ন করা হয়।

প্রশ্নের জবাবে সোহিনী বলেন, ‘বাবা-মার বিয়েটা করাই উচিৎ হয়নি। এতে সোহিনী সরকার জন্ম নিতো না। এটা মানা যায় কিন্তু ওদের দুজনের জীবনটা তো বাঁচত। আমার মা রাজি থাকলে তাকে আরেকটা বিয়ে দিতাম।’