ইন্টারভিউ

মুসলমান শাসকরা জোর করে ধর্মান্তর করালে এ দেশে এক জনও হিন্দু থাকত না

নিজেকে  ‘ইহুদি ব্রাহ্মণ’ বলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে দক্ষিণ এশিয়া চর্চার অধ্যাপক শেলডন পোলক। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের মূর্তি ক্লাসিকাল লাইব্রেরি ইন্ডিয়া প্রকল্পের সাধারণ সম্পাদক সম্প্রতি জয়পুর লিটারারি ফেস্টিভ্যালে এসেছিলেন। – গৌতম

‘বাংলাদেশের রাজনীতি ভবিষ্যতে আরও সংঘাতের দিকে এগিয়ে যাবে’

আকবর আলি খান। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব। সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, বুদ্ধিজীবী ও সমাজ বিশ্লেষক হিসেবেও তার খ্যাতি রয়েছে। বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থা নিয়ে বাংলাদেশ থেকে প্রকাশিত সুপরিচিত

আন্দোলনের কৌশল নির্ধারণ করেন খালেদা জিয়া

কাজী সুমন : চলমান আন্দোলনের কৌশল একাই নির্ধারণ করছেন বিরোধী জোটের শীর্ষনেতা ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। কর্মসূচি বাস্তবায়নে দলের সিনিয়র নেতা ও তৃণমূল কর্মীদের দিচ্ছেন  নানা নির্দেশনা। তবে এই

সাংবিধানিক বৈধতাই গণতান্ত্রিক সরকারের একমাত্র ভিত্তি নয়

সংখ্যাগরিষ্ঠের কাঁধে চেপে রাষ্ট্র কেড়ে নিতে পারে আপনার অধিকার। ধ্বংসের মুখোমুখি দাঁড়াতে পারেন আপনি, আপনার সম্পদ। আজ যে নিরাপদ, কাল যে পতিত হতে পারে চরম অনিশ্চয়তায়। অধ্যাপক আলী রিয়াজের ভাষায়,

পাকিস্তান কিন্তু থেকে গেছে,  থেকে যাচ্ছে : আয়েশা জালাল

যুক্তরাষ্ট্রে টাফ্টস ইউনিভার্সিটির শিক্ষক, পাকিস্তানি ইতিহাসবিদ আয়েশা জালাল-এর প্রথম বই বলেছিল: ধর্ম নয়, পাকিস্তান দেশটির জন্মের কারণ ছিল রাজনীতি। তাঁর সাম্প্রতিকতম বই বলছে, পাকিস্তানের বর্তমান সংকটকেও ইসলামি গোঁড়ামির বদলে উপমহাদেশীয়

দেশ জটিল অবস্থায়, এ অবস্থা চলতে থাকলে রাষ্ট্র অস্তিত্ব সংকটে পড়বে

দেশে কি হতে যাচ্ছে তা সরাসরি বলা খুব মুশকিল। কারণ দেশের পরিস্থিতি খুবই জটিল। দেশের ক্ষমতাসীন এবং আন্দোলরত উভয় পক্ষই অনড় অবস্থানে। আর অনড় অবস্থানে থেকে রাজনীতি করা যায় না

‘সরকারের অসংযত বক্তব্য পরিস্থিতি উস্কে দিচ্ছে’

বাংলাদেশে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অনেকে বলেছেন, বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটের অবরোধে সহিংসতার কৌশল পুরোনো হলেও পেট্রলবোমা হামলার ঘটনাগুলো পরিস্থিতিকে ভয়াবহ করে তুলছে। সিনিয়র সাংবাদিক আমানউল্লাহ কবির বলেছেন, অতীতেও রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সহিংসতা হয়েছে।

পরিবর্তন না আনলে ভাঙবে পাকিস্তান

পেশোয়ারে ১৪১ জনকে হত্যা করা হয়েছে। এদের বেশির ভাগই ১২ থেকে ১৬ বছরের শিশু শিক্ষার্থী। নিহতদের তালিকায় শিক্ষকও আছেন। আরো আড়াই শ জনের কাছাকাছি গুরুতরভাবে আহত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

বিবেকবর্জিত আমলা ও ক্ষমতালোভী রাজনীতিকেরা জোটবদ্ধ

আকবর আলি খান ১৯৭১ সালে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে উপসচিবের দায়িত্ব পালন করেন। এ কারণে পাকিস্তান সরকার তাঁর অনুপস্থিতিতে তাঁকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করে। ১৯৯৫ থেকে ২০০১ সালের জুন পর্যন্ত

‘বিদেশি চাপে বেকায়দায় সরকার : ক্ষমতা থেকে তাদের চলে যেতে হবে’

বাংলাদেশে বর্তমান সরকার সম্পূর্ণ অবৈধ এবং অনৈতিক। এই সরকারকে চলে যেতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন সিনিয়র সাংবাদিক এবং বিশিষ্ট টিভি উপস্থাপক শফিক রেহমান। তিনি বলেন, বিএনপি নেতারা মনে করছেন, সরকারকে