পাক-ভারতের শত্রু-মিত্র

পাকিস্তান ও ভারতের উত্তেজনার মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ায় পরাশক্তি ও আঞ্চলিক শক্তিগুলোর কৌশলগত অবস্থানের দিকটি এবার স্পষ্ট হয়ে গেল। আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে যে নতুন সমীকরণ চলছে তার দৃশ্যমান প্রভাব বোঝা গেল। যদিও

বল এখন সরকারের কোর্টে

দেশের রাজনৈতিক সঙ্কট নিরসনের চাবিকাঠি এখন পুরোপুরিভাবে ক্ষমতাসীনদের হাতে। সবার অংশগ্রহণমূলক একটি নির্বাচন নিয়ে স্থায়ী সমাধান না হওয়া পর্যন্ত যে দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা আসবে না তা নিশ্চিত করে বলা যায়।

বর্তমান আন্দোলনের ভবিষ্যৎ

বয়সের কারণে হোক বা বাস্তবতা উপলব্ধির করে হোক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুুল মুহিত প্রায়ই সত্য উচ্চারণ করেন। এসব সত্য কথা ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ যে প্রচার প্রপাগান্ডা চলছে তার সম্পূর্ণ বিপরীত।

গুলির পর কী

দমন-পীড়ন আর গুলিতেই রাজনৈতিক সঙ্কটের সমাধান দেখছেন সরকারের নীতিনির্ধারকেরা। মন্ত্রী থেকে পুলিশের আইজি, র‌্যাব আর বিজিবির ডিজি গুলি করার মাধ্যমে সরকারবিরোধী আন্দোলন দমন করা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন। তাদের

উপজেলা নির্বাচনের বার্তা

উপজেলা নির্বাচন নিয়ে এখন নানামুখী বিশ্লেষণ চলছে। সাংগঠনিক দুর্বলতার কারণে ক্ষমতাসীন দল বেশির ভাগ উপজেলায় পরাজিত হয়েছে এমন কথা এখন গণমাধ্যমে জোর দিয়ে বলা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের অনেক নেতাও এমন