বাংলাদেশের জয় নিয়ে যা বলল আনন্দবাজার

কার্ডিফে বাংলাদেশের জয়কে অসাধারণ জয় বলে মন্তব্য করেছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা। সংবাদের শিরোনাম দিয়েছে ‘কার্ডিফে দুই বাঘের দাপটে ছিটকে গেল নিউজিল্যান্ড’।

তাদের বর্ণনা শুরু হয়েছে এভাবে, যশোর ও ময়মনসিংহের দূরত্ব প্রায় সওয়া তিনশো কিলোমিটার। কিন্তু তাতে কী! শুক্রবার কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে যেন মিলিয়ে গেল এই দূরত্ব। দুই ক্রিকেট তারকা মিলিয়ে দিলেন দুই জেলাকে। সাকিব আল হাসান এবং মাহমুদউল্লাহ— দুই তারকার মহাকীর্তিতে বাংলাদেশের ক্রিকেটে এল এক অসাধারণ জয়। যে জয় তাদের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শেষ চারের দৌড়ে টিকিয়ে রাখল। ছিটকে দিল নিউজিল্যান্ডকে। নিউজিল্যান্ডের ২৬৫-৮ স্কোরের জবাবে একটা সময় ৩৩ রানে চার উইকেট খুইয়ে প্রায় দমবন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছিল মাশরাফি মর্তুজাদের। এই জায়গা থেকে শুরু করে সাকিব-মাহমুদউল্লাহ জুটি ২২৪ রানের পার্টনারশিপ গড়ে। যা বাংলাদেশের ওয়ান ডে

ইতিহাসে রেকর্ড। মোসাদ্দেক হোসেনের শট থার্ডম্যান বাউন্ডারিতে পৌঁছতেই গ্যালারির সমর্থকরা উল্লাসে ফেটে পড়েন। গ্যালারি তখন ভরে গিয়েছে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের শয়ে শয়ে পুতুল ও জাতীয় পতাকায়।

রিপোর্টে আরো উল্লেখ করা হয়, এই জয়ের ফলে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শেষ চারে ওঠার দৌড়ে টিকে রইল বাংলাদেশ। শনিবার তারা অধীর আগ্রহে অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড ম্যাচের দিকে তাকিয়ে থাকবে। স্টিভ স্মিথরা হেরে গেলে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শেষ চারে পৌঁছে যাবে বাংলাদেশই। ইংল্যান্ডকে হারাতে পারলে অবশ্য শেষ চারে উঠে যাবে অস্ট্রেলিয়া।

রিপোর্টের মন্তব্যে বলা হয়, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আগেই আয়ারল্যান্ডে তারা যা করেছিল, সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হল এ দিন সোফিয়া গার্ডেনে। দুই তারকার অসাধারণ ব্যাটিংয়ের সামনে মাথা নত করতে হল টিম সাউদি, ট্রেন্ট বোল্টের মতো পেসারদেরও। ঠান্ডা মাথায় তাঁদের মোকাবিলা করে ২২৪ রানের পার্টনারশিপ তো গড়েনই তাঁরা, সাকিব ছয় ও মাহমুদউল্লাহ চার হাঁকিয়ে সেঞ্চুরিও করেন। নিউজিল্যান্ডের তোলা ২৬৫ রান টপকাতে তাদের লাগল ৪৭.২ওভার।

You Might Also Like