বিয়ারে অভ্যস্ত দু’বছরের শিশু!

দুধ শিশুদের অন্যতম প্রধান খাবার হলেও দুধের পরিবর্তে বিয়ার পানে শিশু বেড়ে উঠার ঘটনা বিরল। এমনই ঘটনা ঘটেছে চীনের এক দু’বছরের শিশুর বেলায়।

বিয়ারে অভ্যস্ত দু’বছরের শিশুটি ‌‘ওয়াইন বিবার’ নামে খ্যাত এক বোতল বিয়ারের জন্য কান্না শুরু করে। আর দুপুরে খাওয়ার পর আবার একটু ওয়াইন-এর জন্য কান্না শুরু করে।!

বিষয়টি অবাক করার মতো হলেও বাস্তবে তা-ই ঘটছে।  চিং চিং নামের শিশুটি দুধ খেতে চায় না। দুধ খেলে নাকি তার পেট, মন কিছুই ভরে না।

তবে এক বোতল বিয়ার সে অনায়াসেই নাকি খেয়ে ফেলে। এতে তার শরীর একটুও টলমল করে না। দিব্যি ছুটে বেড়ায় গোটা বাড়ি।

মাত্র দশমাস বয়সেই ওয়াইন চোখে পড়ে তার। এরপর থেকেই সে দুধ ছেড়ে অ্যালকোহলের নেশায় পড়ে যায়। বাড়িতে খাবার টেবিলের উপর রাখা ছিল সেই ওয়াইনের বোতল।

মার কাছে সেই বোতল হাতে নেয়ার বায়না ধরে চিং চিং। সেসময় ওয়াইন খেয়েছিল সে নিজের অজান্তেই। কিন্তু এখন  জেনে বুঝেই খাচ্ছে।

চিং চিং-এর মা-বাবা বলেন, ছেলে যে এতো জেদি তাকে বারণ করলেও শোনে না। ওয়াইন বা বিয়ার জাতীয় কিছু একটা না দিলে কোনও খাবারই খেতে চায় না সে। আর সে কারণেই ওয়াইনের বোতল বাড়িতে লুকিয়ে রাখা হয়। তবুও রক্ষে নেই।

মনোবিজ্ঞানীদের মতে, বড়দের দেখেই শিশুরা অভ্যস্ত হয়। শিশুদের কাছ থেকে যতবেশি লুকিয়ে রাখা যায় ততই ভালো। তবে সমস্যার সমাধান করতে হলে ওয়াইনের বোতলের মধ্যেই চিং চিংয়ের খাবার ঢেলে রাখা উচিত। তাহলে হয়তো কিছুটা সমাধান হতে পারে।

শিশু চিং চিং কে নিয়ে শিশু চিকিৎসকের পরামর্শও নিয়েছেন তার বাবা-মা। তার শারীরিক বিভিন্ন পরীক্ষাও করা হয়েছে। কিন্তু কোনো ধরনের সমস্যাও ধরা পড়েনি। সারাদিন বিয়ার আর ওয়াইনেই আশক্ত থাকে চিং চিং।

You Might Also Like