ফটোসেশন নয়, উপকূলে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে এসেছি: ওবায়দুল কাদের

ঘূর্ণিঝড় মোরায় ক্ষতিগ্রস্ত উপকূলে ত্রাণ সহায়তা শুরু করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এরই অংশ হিসেবে আজ (শুক্রবার) সকাল ১০টায় কক্সবাজার শহরের কুতুবদিয়াপাড়ায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

এ সময় উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি বলেন, আমরা দেখেছি বিএনপি হাওরে গিয়ে ফটোসেশন করেছে কিন্তু আমরা ফটোসেশন করতে আসিনি। আমরা এসেছি উপকূল এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আমরা কক্সবাজারে এসেছি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ঘুর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা করতে। কারণ আওয়ামী লীগ মানুষের জন্য কাজ করে। অসহায় দুস্থদের পাশে থাকে সব সময়। মৃত্যুর ক্ষতিপূরণ ছাড়া ঘূর্ণিঝড়ে দুর্গতদের আবাসন তৈরিসহ একে একে সব ক্ষতি পুষিয়ে দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

খালেদা জিয়ার বাজেট প্রতিক্রিয়ার সমালোচনা করেন ওবায়দুল কাদের। শালীনতা ও সম্মানের সঙ্গে কথা বলার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের বাজেট খায় খায় খাওয়া ভবন তৈরির বাজেট নয়। এই বাজেট উন্নয়ন ও জনকল্যাণের জন্য। তাই উন্নয়ন ও জনকল্যাণের বাজেট দেখে বেগম জিয়া ও তার দলের গাত্রদাহ শুরু হয়েছে।
কক্সবাজার শহরের কুতুবদিয়াপাড়ায় ঘূর্ণিঝড় মোরায় ক্ষতিগ্রস্ত ৬০০ পরিবারের মাঝে ১০ কেজি চাল ও নগদ ১ হাজার টাকা করে বিতরণ করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। এরপর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা চারটি দলে ভাগ হয়ে টেকনাফ, কুতুবদিয়া, মহেশখালী, চকরিয়া ও পেকুয়ায় ঘূর্ণিঝড় মোরার আঘাতে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ১৩২ মেট্রিক টন চাল ও নগদ অর্থ বিতরণ করেন।

এ সময়, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামিম, ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসিম কুমার উকিল, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ত্রাণ কমিটি বৃহস্পতিবার বিকেলে কক্সবাজার পৌঁছে।

You Might Also Like