নবাবগঞ্জ এসোসিয়েশনের অভিষেকে ভ্রাতৃত্ব বন্ধনের দৃঢ় প্রত্যয়

পরস্পর ভ্রাতৃত্ব বন্ধন ও সম্প্রীতি স্থাপনের দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে সমাপ্ত হয়েছে প্রবাসের অন্যতম আঞ্চলিক সংগঠন নবাবগঞ্জ এসাসিয়েশন অব ইউএসএ ইনকের নতুন কমিটির অভিষেক, বাংলা বর্ষবরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এই অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র সফররত, সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা

গত ৩০ এপ্রিল রবিবার অভিষেক অনুষ্ঠিত হয় নিউইয়র্ক সিটির উডসাইডের কুইন্স প্যালেসে। তিন পর্বে সাজানো অনুষ্ঠানের শুরুতে ছিল নতুন কমিটির শপথ অনুষ্ঠান। এতে সভাপতিত্ব করেন সভাপতি মো: গিয়াস উদ্দিন। এ পর্বে নতুন কর্মকর্তাদের শপথ বাক্য পাঠ করার প্রধান উপদেষ্টা বদরুল ইসলাম খান বাদল। শপথের পর নতুন কমিটির সদস্যদেরকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান এ প্রজন্মের কিশোর-কিশোরীরা। অনুষ্ঠানের শুরুতেই পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন আমিন মেহদী বাবু, গীতা পাঠ করেন গণেশ কীর্ত্তনীয়া।

দ্বিতীয় পর্ব আলোচনা সভা নাজিয়া লীনা, সেলিম ইব্রাহিম ও সাধারণ সম্পাদক মো: মিলন মোল্লার যৌথ উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র সফররত, সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা। অতিথি হিসেবে মঞ্চে ছিলেন, মুলধারার নেতা এর্টণী মঈন চৌধুরী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ইসতিয়াক রুমি, সাবেক আইন মন্ত্রীর পিএস এডভোকেট আকসির এম চৌধুরী, সাবেক ছাত্রনেতা মোহাম্মদ মহসিন, ডা: তাজুল ইসলাম, বাসেত রহমান, ইঞ্জিনিয়ার ফারুক হোসেন, হাবিব জোয়াদ্দার, হাজী মুজিবুর রহমান, সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা বদরুল ইসলাম খান বাদল, উপদেষ্টা আব্দুস সাত্তার খান, আমিন মেহেদী বাবু, মীর রেজাউল হক রেজা, এম রহমান সাচ্চু, প্রফেসর আনোয়ার হোসেন খান, এস মিয়া তৌহিদ,  নাসির উদ্দিন, বখতিয়ার রহমান খোকন, আতাউর রহমান আতা প্রমুখ। প্রধান অতিথি ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা বলেন, নতুন কমিটির সদস্যদেরকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, সমাজ ও দেশের উন্নয়নে ঐক্যবদ্ধতার বিকল্প নেই। প্রবাসী নবাবগঞ্জবাসী ঐক্যবদ্ধ হয়ে একই ছায়াতলে অবস্থান করে নবাবগঞ্জ এসোসিয়েশন ইউএসএ ইনক প্রতিষ্ঠা করেছে। আমার অন্তর থেকে নির্বাচিত কর্মকর্তাদের প্রতি রইল শুভেচ্ছা। পরস্পর প্রতিহিংসা নয়, বন্ধুসুলভ আচরণই পারে একটি কঠিন কাজকে সহজ থেকে সহজতর
করতে। অন্যান্য বক্তারা বলেন, বহু আশা, আকাংখা আর ভালবাসায় আমাদের প্রিয় সংগঠন নবাবগঞ্জ এসাসিয়েশন অব ইউএসএ ইনক। অনেক বাধাঁকে উপক্ষো করে এ সংগঠনের পথচলা। তবুও দেশ ও প্রবাসে নবাবগঞ্জবাসীর কল্যাণে আমরা সকলে এক ও অভিন্ন। আজকের সুন্দর অনুষ্ঠান আমাদেরকে প্রবাসী নবাবগঞ্জবাসীকে উৎসাহিত করেছে। তাই আমরা গর্বিত। সংগঠনের মাঝে আমরা বছর পর বছর বেচেঁ থাকি। এ সংগঠণ আমাদের প্রাণ। সভাপতির বক্তব্যে মো: গিয়াস উদ্দিন এসোসিয়েশনের সম্মানে প্রতিহিংসার উর্ধে কাজ করার আহবান জানিয়ে বলেন, এ সংগঠন গঠিত হয় ২০১৩ সালে। কমিউনিটির কল্যাণে আমরা ঐক্যবদ্ধ। আমাদের প্রত্যেক সদস্যকে সামাজিক ও কল্যাণমূলক কাজে আরো অধিকতর ভূমিকা পালন করতে হবে। প্রবাসী নবাবগঞ্জবাসী কৃর্তি সন্তানদেরকে সম্মাননা জানানো ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, দল ও মতের উর্ধে ঐক্যবদ্ধ সংগঠন গড়তে প্রয়োজন সহমমির্তার মানসিকতা। সংগঠনকে অভিষ্ট লক্ষে পৌঁছাতে হলে সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি। তৃতীয় পর্ব ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে সঙ্গীত পরিবেশন করেন, কৃষহা তিথি, রোকসানা মির্জা, হাফিজুর রহমান, সেলিম ইব্রাহিম, রুবিনা শিল্পী, আয়েশা আক্তার খানম, সায়মা সালাম রুনি। নৃত্য পরিবেশন করেন শ্রাবনী, কবিতা আবৃতি করেন মিজানুর রহমান বিপ্লব।

২০১৭-১৮ সালে অভিষিক্ত কর্মকর্তারা হলেন: সভাপতি  মো: গিয়াস উদ্দিন, সিনিয়র সহ সভাপতি মুনসুর আলম, সহ সভাপতি তানভীর এ মিলন, সহ সভাপতি মাহবুবুর রহমান সবুজ, সহ সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ সভাপতি শেখ মাহমুদ সিদ্দিক, সহ সভাপতি মোহাম্মদ আলী, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মিলন মোল্লা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গণেষ কীর্ত্তনিয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মজিবুব রহমান বাবু,  যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রুবেল চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ আব্দুল মালেক, কোষাধ্যক্ষ শফিকুল ইসলাম শফিক, দপ্তর সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, প্রচার সম্পাদক আসাদ জামান, ত্রুীড়া সম্পাদক মানিক মিয়া ওয়াদুদ, সহ ত্রুীড়া সম্পাদক শামীম আহম্মেদ, মহিলা সম্পাদিকা আয়েশা আক্তার খানম, সাংস্কৃতিক সম্পাদিকা শায়মা আক্তার রুনী, সহ সাংস্কৃতি সম্পাদক এ্যালেক্স গোমেজ, আপ্যায়ন সম্পাদক ওয়াজেদ মিয়া, সহ আপ্যায়ন গোলাম রিপন, কার্যকরী সদস্য, মো: উজ্জ্বল বিপুল, সেলিম ইব্রাহিম, গোলাম মোস্তফা, মো: সিরাজউদ্দিন সিরাজ, সাইফুল ইসলাম শাহিন, জাহিদুল ইসলাম, শেখ অয়ণ।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন আঞ্চলিক ও পেশাজীবি সংগঠনের নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আব্দুল আউয়াল ভূঞা, আলতাফ হোসেন কবির, মোহাম্মদ হান্নান সরকার, আমিনুল ইসলাম কচি, সালাহ উদ্দিন আহমেদ খোকন, আব্দুল আজিজ, হুমায়ন কবির, সফি উদ্দিন সফা, আনোয়ার হোসেন, কিরণ, নওশেদ, কাঞ্চনসহ আরো অনেক। এ উপলক্ষে সায়মা সালাম রুনির সম্পাদনায় “ইছামতির বাঁেক” নামে একটি স্বরণিকা প্রকাশিত হয়।

You Might Also Like