কৌশলগত যুদ্ধে ইসরায়েল-সিরিয়া

কৌশলগত যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছে ইসরায়েল ও সিরিয়া।

রোববার সিরিয়ার কুইনেত্রা প্রদেশে দেশটির সেনাদের ওপর হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। এতে সিরিয়ার সরকারপন্থি ন্যাশনাল ডিফেন্স ফোর্সেস বাহিনীর তিন যোদ্ধা নিহত ও কমপক্ষে দুজন আহত হয়েছেন।

দুই দিন আগে একই এলাকায় এ ধরনের হামলা চালিয়েছিল ইসরায়েল। কুইনেত্রা প্রদেশের নাবা আল-ফাউয়ার এলাকায় সিরিয়ার সরকারপন্থি যোদ্ধাদের লক্ষ্য করে এ হামলা চালাচ্ছে ইসরায়েলি বাহিনী।

নাবা আল-ফাউয়ার গোলান মালভূমির ৩০ শতাংশ এলাকার মধ্যে অবস্থিত, যা ইসরায়েলের অধিগৃহীত অঞ্চলের বাইরে পড়ে।

লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস এ হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করছে। তবে বিস্তারিত কিছু জানায়নি সংস্থাটি।

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করছে বিদ্রোহী যোদ্ধাবাহিনী ও তাদের মিত্ররা। ২০১১ সালে শুরু হওয়া সিরিয়া গৃহযুদ্ধের শেষ কোথায়, তা এখনো অনিশ্চিত।

শুক্রবারের হামলার বিষয়ে ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী জানায়, তারা সিরিয়ার মধ্যে কয়েকটি স্থান লক্ষ্য করে হামলা চালায়, কারণ সিরিয়া থেকে ছোড়া রকেট হামলার শিকার হয় তাদের অধিকৃত গোলান মালভূমির উত্তরাঞ্চল।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়, সিরিয়া থেক যে হামলা চালানো হয়েছে, তার স্থান লক্ষ্য করে তারা পাল্টা হামলা চালিয়েছে। রোববার সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তাসংস্থা সানা জানায়, সিরিয়ার কুইনেত্রায় সামরিক বাহিনীর একটি অবস্থান লক্ষ্য করে হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল।

কৌশলগত যুদ্ধ
বিদ্রোহী ও অন্যান্য সশস্ত্র গোষ্ঠীকে সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করেছে সিরিয়া এবং তাদের ইসরায়েল সহযোগিতা করছে বলে অভিযোগ করে আসছে সিরীয় সরকার।

১৯৬৭ সালে মধ্যপ্রাচ্য যুদ্ধের সময় গোলান মালভূমির ১ হাজার ২০০ বর্গকিলোমিটার দখল করে নেয় ইসরায়েল এবং পরে ইসরায়েলের মূল ভূখণ্ডের অন্তর্ভুক্ত বলে দাবি করে। কিন্তু ইসরায়েলের এ দাবি কখনো আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পায়নি।

গোলান মালভূমির ৫১০ বর্গকিলোমিটার অঞ্চল এখন সিরিয়ার অধীনে রয়েছে। বাকি অঞ্চল গায়ের জোরে দখল করে রেখেছে ইসরায়েল। ফলে কৌশলগত যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছে দুই দেশ। তবে প্রতিবেশী এ দুই দেশের মধ্যে বড় ধরনের কোনো যুদ্ধ দেখা না গেলেও প্রায়ই ছোট ছোট হামলা পাল্টাহামলার ঘটনা ঘটে দুই দেশের মধ্যে।

You Might Also Like