আসল ব্রেক্সিট হয় ৪৫০,০০০ বছর আগে!

ব্রেক্সিট- এই মুহূর্তে আন্তর্জাতিক বিশ্বে সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। কারণ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে ইউরোপের ছয়টি দেশ ১৯৫৭ সালে যে সংগঠনের যাত্রা শুরু করেছিল, আজ তাতে যুক্ত আয়ারল্যান্ড থেকে শুরু করে ইজিয়ান সাগরের মধ্যবর্তী ২৮টি দেশ এবং তার ৫০ কোটির অধিক জনসংখ্যা।

ফলে ইউরোপের আঞ্চলিক সংগঠন ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে ইউরোপের সবচেয়ে শক্তিশালী পরাশক্তির রাষ্ট্রটি আলাদা হয়ে গেলে তার বিরাট প্রভাব পড়বে ইউরোপে – এটাই স্বাভাবিক।

তবে সারা বিশ্ব যখন ব্রেক্সিট আলোচনায় সরব তখন ভূবিজ্ঞানীরা একটি বোমা ফাটানোর মতো তথ্য দিয়েছেন। তারা বলছেন, ইউরোপের সঙ্গে ব্রিটেনের বিচ্ছেদ হয়েছিল আজ থেকে সাড়ে ৪ লাখ বছর আগে।
কিন্তু কীভাবে হয়েছিলো সেই ব্রেক্সিট? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে হলে আপনাকে ব্রিটেনের মূল ভূখণ্ডের দিকে লক্ষ্য করতে হবে। ব্রিটেন মূলত ইউরোপের মূল ভূখণ্ড থেকে সম্পূর্ণ আলাদা একটি দ্বীপরাষ্ট্র। ইউরোপের উত্তর-পশ্চিম উপকূলরেখায় ইউরোপ মহাদেশীয় সোপানে গ্রেট ব্রিটেন অবস্থিত। ইউরোপের মূল ভূখণ্ড থেকে এই দ্বীপপুঞ্জকে পৃথক করে রেখেছে উত্তর সাগর ও ইংলিশ চ্যানেল। ইংলিশ চ্যানেলের এক প্রান্তে ব্রিটেনের ডোভার শহর এবং অন্য প্রান্তে ফ্রান্সের ক্যালে শহর।

তবে আজ ব্রিটেনের যে ভৌগোলিক রূপ আমরা দেখতে পাই, সাড়ে চার লক্ষ বছর আগে এমনটি ছিল না। তখন ব্রিটেন ইউরোপের মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে যুক্ত ছিলো। সে সময় এই দ্বীপ ছিল ইউরোপের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের অংশ। সে সময় সমৃদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা আজকের চেয়ে ১২০ মিটার (৩৯০ ফুট) কম ছিল। গোটা উত্তর সাগর ছিল বরফ দ্বারা আচ্ছাদিত। ফলে ইউরোপীয় মূল ভূখণ্ড স্থলপথে ব্রিটেনের সঙ্গে যুক্ত ছিল। কিন্তু সাড়ে চার লক্ষ বছর পূর্বে উত্তর সাগরের বরফ গলতে শুরু করে।

বরফ যুগের দুটি হিমবাহ হ্রদের সব বরফ গলে যে বিপর্যয়ের সৃষ্টি হয়েছিল, তাতেই ইংলিশ চ্যানেল সৃষ্টি হয়। ভূবিজ্ঞানীদের মতে এর ফলে ইউরোপের মূল ভূখণ্ড থেকে আলাদা হয়ে গিয়েছিল আজকের ইংল্যান্ড বা ব্রিটেন। ভূবিজ্ঞানীরা প্রকৃতির এই স্বাভাবিক নিয়মে বরফ যুগের সব বরফ গলে ব্রিটেনের এই আলাদা হয়ে যাওয়াকে ব্রেক্সিট হিসেবেই অবিহিত করছেন। তারা বলছেন, যে ব্রিটেন সাড়ে চার লক্ষ বছর পূর্বে প্রকৃতির এক অঘোম ইশারায় মূল ইউরোপ থেকে আলাদা হয়ে গিয়েছিল, তারা যে আজ ইউরোপের সঙ্গে থাকবে না- এটাই স্বাভাবিক।

You Might Also Like