‘মাশরাফির মতো ক্রিকেটার এক যুগে একজনের বেশি আসে না’

ক্যারিয়ারের শেষ আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচের দ্বারপ্রান্তে মাশরাফি বিন মুর্তজা। বৃহস্পতিবার কলম্বোয় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিজের শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবেন মাশরাফি। এরপরই ক্রিকেটের সবচেয়ে সীমিত পরিসরের জার্সি আলমারিতে তুলে রাখবেন টাইগার দলপতি।

কাল অনেকটা আচমকাই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মাশরাফি। খুব ঘনিষ্ঠজন ছাড়া মাশরাফির অবসরের সিদ্ধান্ত কেউ জানত না। বিসিবির বোর্ড কর্তারাও অবগত ছিলেন না। তবুও তার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সহ-সভাপতি মাহবুব আনাম, ‘মাশরাফির নিজস্ব সিদ্ধান্তকে সম্মানের সাথে নিতে চাই। আমি আগেও বলেছি ও কখন খেলার থেকে অবসর নিবে, সেই সিদ্ধান্ত ও এককভাবে নিবে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে তার অবসরের সিদ্ধান্ত একক সিদ্ধান্ত। ও যে সিদ্ধান্ত নিবে, সেটাই বড়।’
ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই মাশরাফিকে খুব কাছ থেকে দেখেছেন মাহবুব আনাম। তার ক্লাব মোহামেডানেও মাশরাফি খেলেছেন দীর্ঘদিন। জাতীয় দলের অধিনায়ককে নিয়ে মাহবুব আনামের ভাবনা, ‘মাশরাফি বাংলাদেশ ক্রিকেটের একটা স্তম্ভ। বাংলাদেশ ক্রিকেট আজকের যে অবস্থানে এসেছে, সেখানে মাশরাফির অবদান প্রচুর। দলকে একাত্ম করায় বড় ভূমিকা রেখেছে ও। আমি সব সময় বলেছি মাশরাফি বড় হৃদয়ের ক্রিকেটার। এবং তার সমতুল্য খেলোয়াড় আমি আজ অবধি বাংলাদেশ ক্রিকেটে দেখিনি। তার অভাব পূরণ করা বাংলাদেশ দলের পক্ষে সহজ হবে না। ওর মতো খেলোয়াড় এক যুগে একটার বেশি আসে না।’

নতুন খেলোয়াড়দের সুযোগ তৈরি করে দিতেই অবসর নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন মাশরাফি। কিন্তু এর অন্তরালে রয়েছে কোচের চাওয়া! চন্ডিকা হাথুরুসিংহে তিন ফরম্যাটে তিন অধিনায়ক চেয়েছেন। তা জানতে পেরেই নিজ থেকে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে সরে যাওয়া মাশরাফির! এরকম গুঞ্জন ছড়িয়েছে ক্রিকেটপাড়ায়। বোর্ডের সহ-সভাপতি এসব গুঞ্জনকে উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ‘আমরা গুঞ্জনে কান দেই না। আপনারাও দিবেন না। আমি মনে করি, মাশরাফি সুচিন্তিত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সে বাংলাদেশ ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিশ্ব টি-টোয়েন্টি আজ থেকে প্রায় তিন-চার বছর দূরে রয়েছে। সেখানে অন্য কাউকে জায়গা করে দেওয়ার জন্য সে সরে গেছে। এরকম মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে জাতীয় দলের অন্য ক্রিকেটারকে সরে যেতে আমি দেখিনি। হ্যাটস অফ টু হিম।’

You Might Also Like