বিদেশি মেডিক্যাল ছাত্রী রাউধার ময়নাতদন্ত

মালদ্বীপের মডেল রাউধা আতিফের লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

রাউধা রাজশাহীর ইসলামী ব্যাংক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের এমবিবিএস দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিল। সে আত্মহনন করেছে বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে।

শুক্রবার দুপুরে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের (রামেক) মর্গে তার লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়।

এর আগে লাশের ময়নাতদন্ত করতে রামেকের পক্ষ থেকে তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। রামেক হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক ডা. মনসুর রহমানকে প্রধান করে এ কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক ডা. এমদাদুর রহমান ও ডা. এনামুল হক।

ময়নাতদন্ত শেষে ডা. মনসুর রহমান জানান, শুক্রবার দুপুর ১২টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত রাউধার লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়। এরপর লাশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে ময়নাতদন্তে প্রাথমিকভাবে কী পাওয়া গেছে তা জানাতে চাননি তিনি।

ময়নাতদন্তকারী দলের আরেক সদস্য ডা. এনামুল হক বলেন, ‘আমরা কিছু পরীক্ষা-নীরিক্ষা করছি। দু’একদিনের মধ্যেই ময়নাতন্তের প্রতিবেদন পুলিশকে দিয়ে দেওয়া হবে। তখনই মৃত্যুর কারণ নিশ্চিতভাবে বলা যাবে। এখন এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করছি না।’

নগরীর শাহমখদুম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)জিল্লুর রহমান জানান, ময়নাতদন্তের পর মর্গ থেকে লাশ নিয়ে রামেকের হিমঘরে রাখা হয়েছে।

মালদ্বীপের রাষ্ট্রদূত ও রাউধার পরিবারের সদস্যরা দুপুর পর্যন্ত রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) সদর দপ্তরে অবস্থান করছিলেন। তবে তখন পর্যন্ত তারা সিদ্ধান্ত নেননি, লাশ মালদ্বীপ নিয়ে যাওয়া হবে নাকি বাংলাদেশেই সমাহিত করা হবে।

গত বুধবার বেলা ১১টার দিকে ইসলামী ব্যাংক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের হোস্টেল থেকে এমবিবিএস দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রাউধার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে।

রাউধার বাড়ি মালদ্বীপের মালেতে। তার বাবা মোহাম্মদ আতিফ পেশায় একজন চিকিৎসক।

২০১৬ সালের অক্টোবরে বিখ্যাত ‘ভোগ ইন্ডিয়া’ সাময়িকীর নবম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর সংখ্যায় এশিয়ার বিভিন্ন দেশের মডেলদের নিয়ে প্রচ্ছদ প্রতিবেদন প্রকাশ করে। সেলিব্রেটিং বিউটি ইন ডাইভার্সিটি শিরোনামের ওই প্রতিবেদনে স্থান পেয়েছিলেন মালদ্বীপের নীলনয়না এই মডেল।

রাউধার লাশের ময়নাতদন্ত করা হবে কী না সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পরিবারের জন্য অপেক্ষা করা হচ্ছিল। পরে বৃহস্পতিবার রাজশাহী আসেন মালদ্বীপের রাষ্ট্রদূত আইশাদ শান শাকির ও কমনওয়েলথের সেকেন্ড সেক্রেটারি ইসমাইল মুফিদসহ একটি প্রতিনিধি দল। পরে আসেন রাউধা আতিফের মা-বাবা ও ভাই। পরে শুক্রবার সকালে তারা রামেক হাসপাতালের হিমঘরে রাখা রাউধার লাশ দেখতে যান। এ সময় তারা কান্নায় ভেঙে পড়েন। এরপরই তারা লাশের ময়নাতদন্তের সিদ্ধান্ত নেন।

এর আগে গত বুধবার রাউধার লাশ উদ্ধারের দিনই নগরীর শাহমখদুম থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করে ইসলামী ব্যাংক মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ।

You Might Also Like