‘ফিলিস্তিনিদের ওপর বর্ণবৈষম্যবাদী শাসন চাপিয়েছে ইসরায়েল’

ইসরায়েল ফিলিস্তিনি জনগণের ওপর বর্ণবৈষম্যবাদী শাসন চাপিয়ে দিচ্ছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের একটি কমিশন। বুধবার জাতিসংঘের পশ্চিম এশিয়া বিষয়ক অর্থনৈতিক ও সামাজিক কমিশন (ইএসসিডব্লিউএ) তাদের এক প্রতিবেদনে এ দাবি করেছে।

এই প্রথমবার জাতিসংঘের কোন সংস্থা ইসরায়েলকে বর্ণবৈষম্যবাদী হিসেবে অভিযুক্ত করলো। এতে অবশ্য ইসরায়েল ও এর মিত্র দেশগুলো তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে।

ইএসসিডব্লিউএ তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, ‘ফিলিস্তিন রাষ্ট্রটি কৌশগতভাবে বিচ্ছিন্ন হওয়ায় ইসরায়েল বিভিন্ন আইন প্রণয়নের মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদের ওপর বর্ণবৈষম্যবাদী শাসন প্রতিষ্ঠা করেছে।’

জাতিসংঘের ফিলিস্তিন বিষয়ক সাবেক মানবাধিকার কর্মকর্তা রিচার্ড ফোক এবং ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ভার্জিনিয়া টিলে প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন। এতে বলা হয়েছে, ফিলিস্তিনিরা ইহুদি নয় এর ওপর ভিত্তি করেই তাদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, চাকরি ও আবাসান অধিকার প্রদানে বৈষম্য করা হচ্ছে। ফিলিস্তিনিদের ব্যাপারে ইসরায়েল যে অগ্রহণযোগ্য নীতি গ্রহণ করেছে তাতে উপবিদেশবাদী, বর্ণবৈষম্যমুলক ও জাতিগত শুদ্ধি অভিযানের উপাদান রয়েছে।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, ‘ইসরায়েল বর্ণবৈষম্যবাদী শাসন আরোপের জন্য দায়ী (কোনো সন্দেহ ছাড়াই), যা এই কমিশনের কাছে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হয়েছে।’

কমিশনের প্রধান রাইমা খালাফ বলেছেন, এই প্রতিবেদনে স্পষ্ট করে আরো বলা হয়েছে, ইসরায়েল ফিলিস্তিনি জনগণের উপর নিপীড়ন চালাচ্ছে। এ প্রতিবেদনের ভিত্তিতে জাতিসংঘ ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এদিকে প্রতিবেদন প্রকাশের পরপর জাতিসংঘে নিযুক্ত ইসরায়েলের রাষ্ট্রদূত ড্যানি ড্যানন একে ‘ডাহা মিথ্যা’ বলে মন্তব্য করেছেন।

You Might Also Like