পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার

নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খানের সঙ্গে মালিক-শ্রমিক নেতাদের বৈঠকের পর সারাদেশে চলমান পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

বুধবার রাজধানীর মতিঝিলে সড়ক পরিবহন সমিতির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন মন্ত্রী শাজাহান খান।

বৈঠকে নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান ও স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতারা এ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে দেশব্যাপী চলমান অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহারের নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সচিবালয়ে ওবায়দুল কাদেরের দপ্তরে পরিবহন ধর্মঘটের বিষয়ে রুদ্ধদ্বার এক বৈঠক শেষে তিনি একথা জানান।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, শ্রম প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙার সঙ্গে বৈঠক করেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েতুল্লাহ খান।

বৈঠক শেষে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন বলেন, ‘আমরা বৈঠকে বসেছিলাম। ধর্মঘটের বিষয়ে আলোচনা করেছি। এখন শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বসে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এ জন্য আমরা পরিবহন মালিক নেতা খন্দকার এনায়েতুল্লাহ খানের অফিসে একটি বৈঠক করবো।’

তিনি আরো বলেন, ‘ধর্মঘট নিয়ে নানা ধরনের ঘটনা ঘটছে। সবকিছু আমাদের নলেজে আছে। আমরা আশাবাদী আজকের মধ্যেই এ ধর্মঘট প্রত্যাহার হবে। ধর্মঘট প্রত্যাহারের বিষয়ে আজকের বৈঠকে আমরা নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে এ ঘোষণা এখান থেকে দিতে চাই না। শ্রমিকদের সঙ্গে বসেই সেখান থেকে ঘোষণা দেয়া হবে।’

শাহজাহান খান সচিবালয় থেকে বের হওয়ার সময় সাংবাদিককে বলেন, ‘ধর্মঘটের মধ্যে জামায়াত-শিবির ঢুকে গেছে।’

বৈঠক শেষে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘আদালতের রায়ের বিষয়ে যদি কারো কিছু বলার থাকে তা আদালতের মাধ্যমেই উপস্থাপন করা উচিত। আদালতের রায় নিয়ে ধর্মঘটে যাওয়া ঠিক না। মানুষকে কষ্ট দিয়ে দাবি আদায় কোনো মানবিক কর্মকাণ্ড হতে পারে না।’ -আরটিএনএন

You Might Also Like