ব্রুলীন মুনা’র সীরাতুন্নবী মাহফিলে ইসলামি শিক্ষার উপর গুরুত্বারোপ

মানুষ শিক্ষা অর্জন করে এবং শিক্ষা দান করে। শিক্ষার মাধ্যমে অজানাকে জানার এবং জানা বিষয়কে কাজে লাগিয়ে অজানার সন্ধান করার যোগ্যতা একমাত্র মানুষেরই আছে। সকল সৃষ্টির মধ্যে বিশেষভাবে মানুষকেই আল্লাহ তা’আলা জ্ঞান অর্জনের যোগ্যতা দান করেছেন। তাই আল্লাহ তা’য়ালা পৃথিবীর শাসন ও নিয়ন্ত্রণের ভার মানুষের উপর অর্পিত করেছেন। সমাজে তারাই সফল হয়েছেন, যারা দ্বীনি শিক্ষা অর্জন করে তা আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ও তাঁর রাসুল (স:)’র আদর্শিত পথে কাজে লাগিয়েছেন। গত ১৭ ফেব্রুয়ারী শুত্রুবার ব্রুকলীনে সীরাতুন্নবী (সা:) মাহফিলের বক্তারা এ সব কথা বলেন। মুসলিম উম্মাহ অফ নর্থ আমেরিকা (মুনা)’র ব্রুকলীন সাউথ ও ওয়েষ্ট চ্যাপ্টারের আয়োজনে সীরাতুন্নবী (সা:) মাহফিল ও প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় ৭২২ চার্চ এভিনিউর ব্রুকলীন ইসলামিক সেন্টার (বিআইসি) মিলনায়তনে। অনুষ্ঠানকে সাজানো হয় দুই পর্বে। প্রথম পর্ব প্রিকে ২ গ্রেড থেকে ৪ গ্রেড পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীদের পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতা। এছাড়া ৬ গ্রেড থেকে ৮ গ্রেড- পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীদের ‘রাসুল (স:) এর মক্কী জীবন’র উপর বক্তৃতা এবং একই বিষয়ে সর্ব সাধারনের জন্য ছিল কুইজ প্রতিযোগিতা।
দ্বিতীয় পর্ব আলোচনা সভা ব্রুকলীন ওয়েষ্ট চ্যাপ্টারের সহ সভাপতি মাওলানা ইব্রাহিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, মুনার নিউইয়র্ক সাউথ জোনের সভাপতি আহমেদ আবু উবাইদা। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইসলামিক স্কলার হাফেজ জাকির আহমেদ। মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন ব্রুকলীন সাউথ ও ওয়েষ্ট চাপ্টারের সভাপতি সাফায়েত হোসাইন সাফা ও সরোয়ারুদ্দী দুলাল, নিউইয়র্ক সাউথের সহ সভাপতি কাজী মো: ইসমাঈল, জোন কর্মকর্তা এ.কে.এম সাইফুল আলম, মাহবুবুর রহমান। অনুষ্ঠান যৌথভাবে পরিচালনা করেন ব্রুকলীন সাউথ ও ওয়েষ্ট চাপ্টারের সাধারণ সম্পাদক মো: ফখরুল ইসলাম ও মোহাম্মদ মুসলিম উদ্দিন।
প্রধান অতিথি আহমেদ আবু ওবাইদা বলেন, জীবনের সকল কাজ ইসলামের বিধান অনুযায়ী কাজ করার জন্য দ্বীনি ইলম শিক্ষার বিকল্প নেই। দ্বীনি ইলমের চর্চা ও বিকাশের মাধ্যমেই মানুষের মধ্যে আল্লাহ ভীতি তৈরী হয়। তিনি বলেন, আল্লাহ তা’আলার নৈকট্য ও সন্তুষ্টি অর্জন ছাড়া আখেরাতের সফলতা অর্জন করা যায় না। এ ক্ষেত্রে প্রত্যেক ঈমানদারের উচিত আখেরাতের সফলতা ও দুনিয়াতে শান্তির জন্য যথাযথভাবে দ্বীনি ইলেমের চর্চা করা।
হাফেজ জাকির আহমেদ রাসুল (সা:)’র জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, রাসুল (সা:) ছিলেন আদর্শের মুর্ত প্রতিক। তিনি মানবতার নবী ছিলেন। আজকের এ যুগে জাহিলিয়াতের সকল চ্যালেঞ্জ মুকাবিলা করেতে হলে রাসুল (সা:)’র আদর্শের অনুসরণ করতে হবে।
মাহফিলে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীকে আকষর্ণীয় পুরস্কার প্রদান করা হয়। প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্বে ছিলেন মাওলানা সিহাব উদ্দিন, মাওলানা নায়েব আলী, মাওলানা জুনায়েদ, নূরুল আনোয়ার, আহসান উদ্দিন ও শফিউল আলম আজম।

You Might Also Like