বাংলাদেশে এখন আইনের শাসন নেই : খালেদা জিয়া

বাংলাদেশে এখন আইনের শাসন নেই দাবি করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, বর্তমানে ‘জংলী শাসন’ চলছে। রাজধানীর মিরপুরের কালশীতে আটকে পড়া পাকিস্তানিদের ক্যাম্পে হামলা-সংঘাতে নিহতদের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

পল্লবী ও রূপনগর থানা বিএনপির উদ্যোগে ‘বিহারি’ ক্যাম্পের হতাহতদের পরিবারকে বৃহস্পতিবার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে নেয়া হয়।

গত ১৪ জুন কালশীর ক্যাম্পে মোহাম্মদ ইয়াসিনের ঘরে আগুন দেয়া হলে পুড়ে মারা যান নয়জন। এরপর বিক্ষুব্ধ ক্যাম্পবাসীর সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান আজাদ নামে আরেকজন।

খালেদা নিহত ৯ পরিবারের অভিভাবক ইয়াসিনকে দুই লাখ এবং আজাদের স্ত্রীকে এক লাখ টাকা নগদ টাকা দেন। আহত ও ক্ষতিগ্রস্ত ৩৬ পরিবারের সদস্যদেরও অর্থ সহায়তা দেন তিনি।

এছাড়া ঢাকা মহানগর বিএনপির পক্ষ থেকে নিহত ও আহত পরিবারের সদস্যদের শাড়ি-লুঙ্গি-কম্বল দেয়া হয়।

খালেদা জিয়া কালশীর ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানান।

কালশীর ক্যাম্পে ঘরের দরজায় বাইরে থেকে তালা মেরে আগুন দেয়ার ঘটনা তুলে ধরে খালেদা বলেন, “আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা আওয়ামী লীগের অভ্যাস।

“আন্দোলনের সময়ে বাসে আগুন লাগিয়ে মানুষ হত্যার যেসব ঘটনা ঘটেছে, ওই সব যে তাদের কাজ ছিল, তা কালশীর ঘটনায় পরিষ্কার হয়ে গেছে।”

কালশীর ঘটনায় মামলার আসামিদের আইনি সহায়তা প্রদান এবং সব সময় পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

বিরোধী দলের দমন-পীড়ন চলছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, “বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে সরকার একের পর এক মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। সারা দেশটাকে তারা কারাগারে পরিণত করেছে।”

অনুষ্ঠানে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম মিয়া, ঢাকা মহানগর সদস্য সচিব আবদুস সালাম, কালশীর ক্যাম্প কমিটির চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন বান্টু, নিহতদের পরিবারের পক্ষে ইয়াসিন এবং আজাদের স্ত্রী সুলতানা বক্তব্য রাখেন।

You Might Also Like