পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে থানায় হামলা: ব্যাপক ভাঙচুর, ৭ পুলিশ আহত

পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার আউসগ্রাম থানায় একদল উত্তেজিত জনতা ব্যাপক ভাঙচুর, পুলিশকর্মীদের মারধর এবং থানার বিশ্রামাগারে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। আজ (শনিবার) ওই ঘটনায় দু’জন কর্মকর্তাসহ ৭ পুলিশকর্মীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

মারমুখী জনতার হাত থেকে প্রাণে বাঁচতে বেশ কিছু পুলিশকর্মী থানা ছেড়ে পার্শ্ববর্তী এলাকায় পালিয়ে যান। আউসগ্রাম উচ্চবিদ্যালয় সংলগ্ন একটি জমিতে দোকানঘর নির্মাণ করা নিয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ এবং পুলিশের মধ্যে গতকাল শুক্রবার উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। ওইদিনই স্কুলের পরিচালন সমিতির সভাপতি চন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শিক্ষক অরবিন্দ বন্দ্যোপাধ্যায়কে পুলিশ আটক করে। শনিবার তাদের থানা থেকে ছেড়ে দেয়া হয়।
পুলিশ কেন তাদের আটক করল তা নিয়ে আজ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকা, অভিভাবক ও গ্রামবাসী থানায় স্মারকলিপি জমা দিতে যায়। এ সময় কর্তব্যরত পুলিশ কর্মীদের সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি এবং বচসা সংঘর্ষে রূপ নেয়। বিক্ষোভকারীরা বাঁশের লাঠি এবং ইট-পাথর নিয়ে হামলা চালায় বলে পুলিশের দাবি।

থানার উপ-পরিদর্শক দীপক পাল আজ কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘থানায় কমপক্ষে ২/৩ হাজার লোক একসঙ্গে হামলা চালায়। থানার গেট বন্ধ করতে গিয়েছিলাম কিন্তু পারিনি। মারমুখী জনতা ধাক্কা মেরে ফেলে দিলে পড়ে যাই। থানার অন্য পুলিশকর্মীদেরও মারধর করা হয়। পুলিশকর্মীরা ভয়ে লুকিয়ে পড়েন। থানার সমস্ত আসবাবপত্র ভেঙেছে হামলাকারীরা।’

বিক্ষোভকারীরা অবশ্য দাবি করেছে, পুলিশই প্রথম তাদের ওপরে লাঠি চালিয়েছে।

You Might Also Like