ষাঁড়ের দৌড় নিয়ে উত্তাল তামিলনাড়ু

জাল্লিকাট্টু (ষাঁড়ের দৌড়) ফেরানোর দাবিতে ভারতের তামিলনাড়ু উত্তাল হয়ে উঠেছে। বৃহস্পতিবার বিক্ষোভের তৃতীয় রাতেও চেন্নাইয়ের মেরিনা সৈকতে প্রতিবাদ অব্যাহত ছিল। এ দিন সৈকতে জমায়েত হয়েছিলেন প্রায় ১৫ হাজার মানুষ।

জাল্লিকাট্টু তামিলনাড়ুর প্রাচীন খেলা। এ খেলায় একটি ছুটন্ত-উন্মত্ত ষাঁড়কে নানা কসরতের পরে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসেন একদল মানুষ। তামিলদের নবান্ন উৎসব পোঙ্গলের সময় এই খেলা হয়ে থাকে। ভারতের সুপ্রিম কোর্টের আদেশে ২০১৪ সাল থেকে এই প্রথা বন্ধ রয়েছে। এ বছর সেই নিষেধাজ্ঞা পুনরায় বহাল রেখেছে শীর্ষ আদালত। পশু-প্রেমীদের সংগঠন পেটার অভিযোগ, ষাঁড় আরও ক্ষেপিয়ে তুলতে খেলার আগে মাদক ইনজেকশন দেওয়া হয় এবং চোখে মরিচের গুঁড়া ছিটিয়ে দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার সারারাত মেরিনা বিচের ৬ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ১৫ হাজার বিক্ষোভকারী অবস্থান নিয়েছে। এই রাতে কেবল তরুণ শিক্ষার্থীরাই নয়, বরং অনেকে এক বছরের শিশুকে নিয়ে সপরিবারে অবস্থান করেছে। শুক্রবার সকালে বিক্ষোভে অংশ নিতে লোকজন মেরিনা বিচে জড়ো হয়েছেন। প্রতিবাদীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন সঙ্গীত পরিচালক এ আর রহমানসহ তামিলনাড়ুর সবকটি রাজনৈতিক দল, অভিনেতা-অভিনেত্রী ও ক্রিকেটাররা। এ আর রহমান শুক্রবার সকাল থেকে অনশনের ঘোষণা দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বিক্ষোভের মূল কেন্দ্রে ছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নাম। কারণ মুখ্যমন্ত্রী ও পনীরসেলভম মোদির সঙ্গে দেখা করার পরেও আশার আলো দেখাতে পারেননি। বুধবার প্রতিবাদীদের শান্ত করতে মুখ্যমন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে জাল্লিকাট্টু নিয়ে অর্ডিন্যান্স আনার কথা তুলবেন। কিন্তু নয়াদিল্লিতে বৈঠকের পরে অর্ডিন্যান্স নিয়ে কিছুই জানাতে পারেননি পনীরসেলভম। তিনি দাবি করেন মোদি তাকে বলেছেন, বিষয়টি সুপ্রিম কোর্টে এখনও বিচারাধীন। তাই কেন্দ্রের পক্ষে অর্ডিন্যান্স জারি সম্ভব নয়। কেন্দ্রীয় সরকার এর আগেই এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, তাদের জাল্লিকাট্টু নিয়ে রাজ্য সরকার যে পথে এগোবে তাতে তাদের কোনও আপত্তি নেই। কিন্তু শেষ কথা বলবে সুপ্রিম কোর্ট।

You Might Also Like