বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব চলছে

টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে র‌্যাব-পুলিশের কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আজ শুক্রবার বাদ ফজর থেকে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব।

দেশের ১৭ জেলার ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুসল্লিরা দ্বিতীয়পর্বে অংশ নিচ্ছেন। এ পর্বের জন্য ইজতেমা ময়দানকে ২৬ খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে।

বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় দ্বিতীয় পর্বের আনুষ্ঠানিকতা। বিশ্ব ইজতেমার শীর্ষ মুরব্বি ইঞ্জিনিয়ার মো. গিয়াস উদ্দিন জানিয়েছেন, বাদ ফজর বয়ান করেন ভারতের দিল্লির মাওলানা মো. শামীম। আর এ বয়ান বাংলায় তরজমা করেন বাংলাদেশের মাওলানা মো. নূর রহমান।

প্রথম পর্বের মতো দ্বিতীয় পর্বেও তুরাগ তীরের ইজতেমা ময়দানে নেমেছে মুসল্লিদের ঢল। দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমায় অংশ নিতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মুসল্লিরা জামাতবদ্ধ হয়ে বুধবার রাত থেকে ইজতেমাস্থলে আসতে শুরু করেন এবং ময়দানে জেলার ওয়ারি খিত্তায় খিত্তায় অবস্থান নেন। কেউবা বাস, ট্রাক, পিকআপ, লেগুনা, কেউবা ট্রেন, নৌকায় করে ইজতেমাস্থলে আসেন। যানবাহন থেকে নেমে তারা তাদের প্রয়োজনীয় মালামাল নিয়ে নিজ নিজ খিত্তায় অবস্থান নিয়েছেন। শুক্রবারও তাদের আগমন অব্যাহত রয়েছে।

ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে ঢাকাসহ দেশের ১৭ জেলার মুসল্লিরা ২৬টি খিত্তায় যেভাবে অবস্থান নিয়েছেন, তা হলো- ১ থেকে ৫ নম্বর ও ৭ নম্বর খিত্তায় ঢাকা জেলা, ৬ নম্বর খিত্তায় মেহেরপুর জেলা, ৮ নম্বর খিত্তায় লালমনিরহাট জেলা, ৯ নম্বর খিত্তায় রাজবাড়ী জেলা, ১০ নম্বর খিত্তায় দিনাজপুর, ১১ নম্বর খিত্তায় হবিগঞ্জ, ১২ ও ১৩ নম্বর খিত্তায় মুন্সীগঞ্জ, ১৪-১৫ নম্বর খিত্তায় কিশোরগঞ্জ, ১৬ নম্বর খিত্তায় কক্সবাজার, ১৭ ও ১৮ নম্বর খিত্তায় নোয়াখালী, ১৯ নম্বর খিত্তায় বাগেরহাট, ২০ নম্বর খিত্তায় চাঁদপুর, ২১ ও ২২ নম্বর খিত্তায় পাবনা, ২৩ নম্বর খিত্তায় নওগাঁ, ২৪ নম্বর খিত্তায় কুষ্টিয়া, ২৫ নম্বর খিত্তায় বরগুনা এবং ২৬ নম্বর খিত্তায় বরিশাল জেলা।

ইজতেমা আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমায় দেশ-বিদেশের বুজর্গ আলেমরা গুরুত্বপূর্ণ বয়ান করবেন ঈমান, আমল, আখলাক ও কালেমা সম্পর্কে। মূল বয়ান উর্দুতে হলেও বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেওয়া বিভিন্ন ভাষাভাষির মুসল্লিদের জন্য তাৎক্ষণিকভাবে ওই বয়ান বাংলা, ইংরেজি, আরবি, তামিল, মালয়, তুর্কি ও ফরাসিসহ স্ব স্ব ভাষায় অনুবাদ করা হয়।

প্রতি বছরই তাবলিগ জামাতের উদ্যোগে টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। ১৬০ একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত ইজতেমা মাঠের প্রস্তুতির প্রায় সব কাজই করা হয় স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে এবং আলাদা আলাদা গ্রুপের মাধ্যমে। বিশ্বের প্রায় সব মুসলিম দেশ থেকে তাবলিগ জামাতের অনুসারি ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা ইজতেমায় অংশ নেন। এখানে তারা তাবলিগ জামাতের শীর্ষ আলেমদের বয়ান শোনেন এবং ইসলামের দাওয়াতি কাজ বিশ্বব্যাপী পৌঁছে দেওয়ার জন্য জামাতবদ্ধ হয়ে বেরিয়ে যান।

আগামী রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব তথা এবারের ৫২তম বিশ্ব ইজতেমা ।

এর আগে একই ময়দানে গত ১৩ জানুয়ারি শুরু হয় বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। প্রথম পর্বে ঢাকা, গাজীপুরসহ ১৭ জেলার মুল্লিরা অংশ নেন। ১৫ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হয় প্রথম পর্ব। চার দিন পর আজ শুরু হলো দ্বিতীয় পর্ব।

You Might Also Like