জাতিসংঘের সঙ্গে সম্পর্ক পুনর্মূল্যায়ন করছে ইসরায়েল

জাতিসংঘের সঙ্গে সম্পর্ক পুনর্মূল্যায়ন করছে ইসরায়েল।

পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমে অবৈধ বসতি স্থাপন বন্ধের আহ্বান রেখে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে প্রস্তাব পাস হওয়ার পর এ উদ্যোগ নিয়েছে ইসরায়েল।

শনিবার ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু জাতিসংঘের সঙ্গে সম্পর্ক পুনর্মূল্যায়নের বিষয়টি জানিয়েছেন।

শুক্রবার নিরাপত্তা পরিষদের ১৫ সদস্যের মধ্যে ১৪ সদস্য ইসরায়েলের বসতি স্থাপনের বিরুদ্ধে ভোট দেয়। ভেটো ক্ষমতার অধিকারী যুক্তরাষ্ট্র ভোটদানে বিরত থাকে। ফলে ইসরায়েলের বসতি স্থাপনের বিরুদ্ধে এই প্রথম শক্তিশালী কোনো পদক্ষেপ নিতে সক্ষম হলো জাতিসংঘ।

ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যেকোনো প্রস্তাবের বিরোধিতা করে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য যুক্তরাষ্ট্র। এর আগে বহুবার ইসরায়েলকে রক্ষা করেছে মার্কিন প্রশাসন। কিন্তু এবার তা করেনি দেশটি। প্রস্তাব পাস হওয়ার পর একে ‘লজ্জাজনক’ হিসেবে অভিহিত করেছেন নেতানিয়াহু।

নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মিশরের ওপর চাপ প্রয়োগ করে প্রস্তাব পেশ থেকে তাদের বিরত রাখেন। পরে মালয়েশিয়া, নিউজিল্যান্ড, সেনেগাল এই প্রস্তাব উত্থাপন করলে তা পাস হয়ে যায়।

নেতানিয়াহু বলেছেন, ‘আমি নির্দেশ দিয়েছে, এক মাসের মধ্যে জাতিসংঘের সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্ক পুনর্মূল্যায়ন করতে। জাতিসংঘের যেসব প্রতিষ্ঠানে ইসরায়েল অনুদান দেয় তাদের সম্পর্কে খোঁজখবর নিতে এবং ইসরায়েলে জাতিসংঘের কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে।’

তিনি আরো বলেন, ‘ইরায়েলের প্রতি শত্রুতাপূর্ণ আচরণ করে জাতিসংঘের এমন পাঁচটি অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ও পাঁচটি পরিষদকে ৭৮ লাখ ডলার অনুদান দেওয়া বন্ধ করতে বলেছি আমি। এ ধরনের আরো প্রতিষ্ঠানের নাম আসছে।’

তবে কোনো প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করেননি এবং বিস্তারিত কিছু জানাননি তিনি।

১৯৬৭ সালে আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের পর অধিগ্রহণ করা পশ্চিম তীর, গাজা, পূর্ব জেরুজালেমে বসতি স্থাপন করে আসছে ইসরায়েল। এ কাজে সব সময় সায় ছিল যুক্তরাষ্ট্রের। কিন্তু এবার এর বিরুদ্ধে দাঁড়ানোয় প্রেসিডেন্ট ওবামার কঠোর নিন্দা করেছেন নেতানিয়াহু।

You Might Also Like