শুক্রবার মাদ্রাসা খোলা রাখার নির্দেশিকা বাতিলের দাবিতে অসম ভবনে স্মারকলিপি

ভারতের বিজেপিশাসিত অসম সরকার জুমার দিন অর্থাৎ শুক্রবার মাদ্রাসা খোলা রাখা সংক্রান্ত যে নির্দেশিকা জারি করেছে তা বাতিলের দাবি জানিয়েছে ‘সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশন’।

অসম ভবনে সে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে দেয়া স্মারকলিপিতে ওই দাবি জানানো হয়েছে। সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে এক প্রতিনিধিদল ওই স্মারকলিপি প্রদান করেন।

শুক্রবার সন্ধ্যায় মুহাম্মদ কামরুজ্জামান রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় চলা মাদ্রাসায় ছুটির দিন শুক্রবারের পরিবর্তে রোববার করার যে নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে তা অবিলম্বে বাতিল করার দাবি জানানো হয়েছে। এ ছাড়া অসম সরকারকে সাংবিধানিক অধিকারের ভিত্তিতে চলা সংখ্যালঘুদের পরিচালিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।’
মুহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, ‘অসম সরকারের ওই নির্দেশিকা সংখ্যালঘুদের সাংবিধানিক অধিকারে হস্তক্ষেপ। সংবিধানের ৩০(এ) এবং ৩০ (বি) ধারায় সংখ্যালঘুদের নিজেদের পছন্দমত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়া এবং পরিচালনা করার অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে।’

গত নভেম্বরে অসমের শিক্ষামন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা এক হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, শুক্রবার মাদ্রাসা বন্ধ থাকলে প্রধান শিক্ষককে বরখাস্ত করা হবে। তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘সরকারকে না জানিয়ে অবৈধভাবে শুক্রবার মাদ্রাসা বন্ধ রাখা হচ্ছে। দেশে রোববার ছুটি পালিত হয় সেখানে মাদ্রাসায় শুক্রবার ছুটি থাকবে কেন?’

রমজান মাসে মাদ্রাসা বন্ধ রাখারও তীব্র বিরোধিতা করে হিমন্তবিশ্ব শর্মা বলেন, রমজান মাসে মাদ্রাসা বন্ধ থাকবে কেন? বাংলাদেশ, পাকিস্তানে বন্ধ থাকতে পারে, ভারতে কেন বন্ধ থাকবে?’

এআইইউডিএফ নেতা ও সাবেক বিধায়ক আব্দুর রহিম খান অসমের শিক্ষামন্ত্রীর সমালোচনা করে বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে শুক্রবার মাদ্রাসা বন্ধ থেকে আসছে। এর বিরোধিতা করে মুসলমান সম্প্রদায়ের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত দিয়েছেন হিমন্তবিশ্ব শর্মা। আরএসএসের বাহবা পেতে প্রস্তাবিত নতুন জনসংখ্যা নীতি এবং মাদ্রাসায় ছুটি সংক্রান্ত বিষয়ে হিমন্তবিশ্ব শর্মা মুসলমানদের টার্গেট করছেন বলেও অভিযোগ করেছেন সাবেক বিধায়ক আব্দুর রহিম খান।

You Might Also Like