‘নোট বাতিলের ঘটনাকে মোদি সরকারের বড় দুর্নীতি বলে আখ্যা দিয়ে তদন্ত দাবি’

ভারতে নোট বাতিলের ঘটনাকে কেন্দ্রীয় মোদি সরকারের সবচেয়ে বড় দুর্নীতি বলে আখ্যা দিয়ে তদন্ত দাবি করেছেন সাবেক কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী ও সিনিয়র কংগ্রেস নেতা পি. চিদম্বরম। আজ (মঙ্গলবার) তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে ওই দাবি জানান।

পি. চিদম্বরম আজ এক সংবাদ সম্মেলনে নোট বাতিলের উদ্দেশ্য সম্পর্কে কেন্দ্রীয় সরকার বার বার বিবৃতি পরিবর্তন করছে বলে মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ‘নোট বাতিল কার্যকর করার সময় সরকার বলেছিল, কালো টাকা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য ওই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এটাও বলা হয়েছিল যে, সন্ত্রাসবাদ সমস্যার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য ওই পদক্ষেপ নেয়া খুব জরুরি ছিল। সরকারের মতে, নোট বাতিলের ফলে সন্ত্রাসী সংগঠনের কাছে থাকা নোট বেকার হয়ে যাবে। কিন্তু ওইসব লক্ষ্যে কোনো সফলতা না আসতে দেখে সরকার এখন বলছে, ওই পদক্ষেপ ক্যাশলেস ইকনমির জন্য নেয়া হয়েছে।’

পি. চিদম্বরম বলেন, ‘নোট বাতিলের আগে দেশে মাত্র ৩ শতাংশ ক্যাশলেস ইকনমি ছিল। এখন মোদি সরকার ৫০ দিনে দেশে ১০০ শতাংশ ক্যাশলেস ইকনমি আনার কথা বলছে। তাহলে কী ৫০ দিনের মধ্যে দেশের প্রতিটি প্রান্তে বিদ্যুৎ, ইন্টারনেট এবং মেশিনসমূহ পৌঁছে দেয়া হবে? এই ৫০ দিনের মধ্যে কী গোটা দেশবাসীকে শিক্ষিত করে তোলা হবে?’

তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, মোদি সরকার ক্যাশলেস ইকোনমির নজির কোথায় দেখেছেন? আমেরিকা এবং সিঙ্গাপুরে কী ক্যাশলেস ইকোনমি আছে?’

চিদম্বরম বলেন, ‘নোট বাতিলের ফলে কী দুর্নীতি বন্ধ হয়েছে? এর ফলে কী দুর্নীতি বন্ধ হয়েছে? সন্ত্রাসীদের ফান্ডিং কী বন্ধ হয়ে গেছে?’ নোট বাতিলের ফলে দেশের ৪৫ কোটি শ্রমজীবি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলেও চিদম্বরম মন্তব্য করেন। #

পার্সটুডে

You Might Also Like