৪ আরব দেশ কিনছে ৭০০ কোটি ডলারের মার্কিন অস্ত্র

চারটি আরব দেশের কাছে ৭০০ কোটি ডলারের অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পেন্টাগন। এসব অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জামের মধ্যে থাকবে ক্ষেপণাস্ত্র, চিনুক ও অ্যাপাচি হেলিকপ্টার এবং সামরিক কার্গো বিমান।
গতকাল (বৃহস্পতিবার) পেন্টাগন এ অনুমোদনের কথা ঘোষণা করেছে। চারটি আরব দেশের কাছে ৭০০ কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রির কথা বলা হলেও এর বেশিরভাগই যাবে সৌদি আরবের কাছে। পেন্টাগনের ঘোষণা অনুযায়ী, সৌদি আরবের কাছে ৩৫১ কোটি ডলারের ৪৮টি সিএইচ-৪৭ এফ চিনুক কার্গো হেলিকপ্টার বিক্রি করা হবে। এর সঙ্গে থাকবে হেলিকপ্টারের ইঞ্জিন, যন্ত্রাংশ ও মেশিনগান।
এরপরেই রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে বড় চুক্তি। ৩৫০ কোটি ডলারের বিনিময়ে এ দেশটি কিনছে ২৭টি অ্যাপাচি হেলিকপ্টার-গানশিপ এবং এগুলোর জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ। এর পাশাপাশি কাতার কিনছে আটটি সি-১৭ সামরিক কার্গো বিমান ও প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ আর মরক্কো কিনবে ১০ কোটি আট লাখ ডলারের ১,২০০ টিওডাব্লিউ ২-এ ট্যাংক-বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র।
আমেরিকা মুখে মুখে সারা বিশ্বের মানবাধিকারের বিষয়ে কথা বললেও সৌদি আরব দারিদ্রপীড়িত ইয়েমেনে ২০১৫ সালের মার্চ মাস থেকে সামরিক আগ্রাসন চালাচ্ছে কিন্তু সে বিষয়ে একদম নীরব। সৌদি আগ্রাসনের মুখে ইয়েমেনের ১০ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছে; এছাড়া আহত হয়েছে এর চেয়ে কয়েকগুণ বেশি মানুষ। সেখানে এখন মানবিক বিপর্যয় ঘটেছে। সংযুক্ত আরব আমিরাত ও কাতার হচ্ছে সৌদি আরবের অন্যতম প্রধান সহযোগী। এরপরও এসব দেশের কাছে অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম বিক্রি করছে আমেরিকা। মার্কিন এসব অস্ত্র ইয়েমেনের জনগণের বিরুদ্ধে করা হবে তাতেও কোনো সন্দেহে নেই। সৌদি আরবের কাছে শুধু ২০১৫ সালেই আমেরিকা বিক্রি করেছে ২,০০০ কোটি ডলারের অস্ত্র।#

You Might Also Like