খাগড়াছড়িতে অবরোধ চলছে

খাগড়াছড়িতে পুলিশের ওপর পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ, পুলিশের ফাঁকা গুলি, গাড়ি ভাংচুর ও পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার মধ্য দিয়ে খাগড়াছড়িতে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) সমর্থিত তিন পাহাড়ি সংগঠনের অর্ধদিবস সড়ক অবরোধ চলছে।

জেলার দীঘিনালার বাবুছড়ায় বিজিবি ৫১, বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন-বিজিবির সদর দফতর স্থাপনকে কেন্দ্র করে স্থানীয় পাহাড়ি কর্তৃক বিজিবি সদর দপ্তরে হামলার ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে বিজিবির বিরুদ্ধে পাহাড়িদের ভূমি দখলের ষড়যন্ত্র এবং পাহাড়িদের ওপর হামলার অভিযোগ এনে খাগড়াছড়িতে অর্ধদিবস সড়ক অবরোধ আহবান করে চুক্তিবিরোধী ইউপিডিএফ সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন।

অর্ধদিবস সড়ক অবরোধের শুরুতেই সকাল সোয়া ৬টার দিকে খাগড়াছড়ি গেট এলাকায় অবরোধ সমর্থকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ করে। তবে সেটি বিস্ফোরিত হয়নি। এ সময় পুলিশ অন্তত পাঁচ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে অবরোধকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। অবরোধকারীরা ইটপাটকেল ও গুলতি মেরে পুলিশের ফাঁকা গুলির জবাব দেয়। এতে রিজার্ভ পুলিশের পরিদর্শক কামরুজ্জামান আহত হন। অবরোধের কারণে জেলার বিভিন্ন সড়কে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এছাড়াও জেলা সদরের পেট্রোল পাম্প, দক্ষিণ খবংখুড়িয়া ও নারিকেলবাগান এলাকায় বিক্ষিপ্ত ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ এ সময় চার রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। অন্যদিকে সকাল সাড়ে ৭টার দিকে গুইমারার বুদংপাড়া এলাকায় একটি মাইক্রোবাস ভাংচুর করে অবরোধকারীরা। এ সময় চারজন আহত হন।

অন্যদিকে সকাল পৌনে আটটার দিকে বাইল্যাছড়ি, সাইনবোর্ড এলাকা, বুদংপাড়া ও যৌথখামার এলাকায় পুলিশি পাহারায় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা খাগড়াছড়িগামী নৈশ কোচে হামলা করে অবরোধ সমর্থকরা। এসময় কয়েকটি বাসের কাচ ভেঙ্গে যায়। গাড়ী ভাঙচুরের প্রতিবাদে বাসগুলো জেলার মাটিরাঙ্গা বাজারে অবস্থান গ্রহণ করে। তারা পুলিশী অনুরোধের পরও খাগড়াছড়ির উদ্দেশ্যে ছেড়ে যেতে রাজি হয়নি। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছে কয়েকশ যাত্রী।

You Might Also Like