ব্রাজিল-ক্রোয়েশিয়ার লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু

অশান্ত  ব্রাজিল, অস্থির রাজনীতি, পথে পথে বিক্ষোভ, সবকিছুকে মাড়িয়ে আর কয়েক ঘণ্টা পরেই মাঠে গড়াচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবল। সাম্বার তাল জাগিয়ে তুলবে বিশ্ববাসীকে। আর ক্রীড়ার সর্ববৃহৎ ও আকর্ষণীয় এই ফুটবল লড়াইয়ের জন্য অপেক্ষার প্রহর গুণছে সারাবিশ্বের কোটি কোটি মানুষ।

বিশ্বকাপের ২০তম আসরে নিজেদের পায়ের জাদু দিয়ে সমর্থকদের মন ভরিয়ে দিতে উদগ্রীব হয়ে আছেন ৩২টি দেশের ফুটবলাররা। নিজেদের ফুটবলশৈলী দেখানোর প্রথম সুযোগটি পাচ্ছেন নেইমার ও তার সহযোদ্ধারা। ষষ্ঠ শিরোপা ঘরে তোলার জন্য মুখিয়ে আছে যারা। সে লক্ষ্যেই বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ২টায় সাও পাওলো স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী ম্যাচে থিয়াগো সিলভার দল ব্রাজিল মুখোমুখি হচ্ছে ক্রোয়েশিয়ার।

তাই আজ দিনের আলো শেষে রাতও বর্ণিল আলোয় ঝলমল করবে। তবে তা বাংলাদেশ থেকে কয়েক হাজার কিলোমিটার দূরে, ফুটবলের দেশ ব্রাজিলে। অবশ্য সে আলোর আভা ছড়াবে লাল-সবুজের দেশের লাখ লাখ অন্ধ ফুটবলপ্রেমীর মধ্যে। যাদের বেশিরভাগই বিভক্ত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনায়।

বাংলাদেশ বাছাইপর্বের প্রথম ধাপেই বাদ পড়ে। তাতে যোজন যোজন দূরের এই ফুটবল আসরটির প্রতি তাদের অকৃত্রিম ভালোবাসায় এক বিন্দুও কমতি থাকে না। এখানে আসার আগে যতটা ভাবা হয়েছিল তার কিছুই লক্ষণীয় নয়। স্টেডিয়ামের চারপাশের পরিবেশ অনেকটা জৌলুসহীন মনে হলেও মাঠের লড়াইয়ে সব কিছু ছাপিয়ে যাবে বলেই মনে হচ্ছে।

দীর্ঘ অপেক্ষার পর মাঠে গড়াচ্ছে ‘গ্রেটেস্ট শো অন দ্যা আর্থ’। তারকা দ্যুতি ছড়ানো স্বাগতিক ব্রাজিলও প্রস্তুত শৈল্পিক ফুটবল উপহার দিতে। তবে নিজেদের মাটিতে হাজার হাজার দর্শক সমর্থন, আত্মতুষ্টি আর মানসিক চাপ বুমেরাং হতে পারে স্বাগতিকদের জন্য। সর্বশেষ প্রস্তুতি ম্যাচে সার্বিয়ার বিপক্ষে ১-০ গোলের জয়ও ভাবাচ্ছে। অবশ্য এটা সংশোধনেরও সুযোগ। ক্রোয়েশিয়াও সুযোগ খুঁজছে আন্ডার ডগ হিসেবে। দর্শক চাপকে পুঁজি করে প্রথমে গোল দিয়ে এগিয়ে থাকার লক্ষ্য নিয়েই হয়তো মাঠে নামবেন তারা।

তবে ব্রাজিলের শক্তি তো পূর্ব রেকর্ড। এর আগের দু’বারের দেখায় পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নদের টলাতে পারেনি ক্রোয়েটরা। লুইস ফিলিপ স্কোলারির অধীনে ২০০২ সালে পঞ্চম শিরোপা জিতেছিল ব্রাজিল। এবারো তিনিই কাঁধে দায়িত্ব তুলে নিয়েছেন কৃতী শিষ্যদের নিয়ে আকাক্সিক্ষত বিশ্বকাপ জয়ের।

প্রথম ম্যাচ জিতলেও পরের দুই ম্যাচে মেক্সিকো ও ক্যামেরুন শক্ত প্রতিপক্ষ। দলে উজ্জীবনী শক্তি আনতে উদ্বোধনী ম্যাচে জয় প্রয়োজন পেলের দেশের। হয়তো সে আশা নিয়েই স্টেডিয়ামে হাজার হাজার দর্শক আসবে প্রিয় খেলোয়াড়দের খেলা দেখতে।

You Might Also Like