সেন্টমার্টিনে যাত্রীবাহী ট্রলারে বিজিপি’র গুলিতে নিহত ৬

অবৈধভাবে সাগর পথে মালয়েশিয়াগামী আড়াইশ যাত্রী বোঝাই একটি ট্রলারকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়েছে মিয়ানমার সীমান্ত রক্ষী পুলিশ (বিজিপি)। এতে ছয় যাত্রী নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন ট্রলারের এক যাত্রী। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত আরো ২০ জন। বুধবার বেলা ১১টার দিকে সেন্টমার্টিন থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে মিয়ানমার সীমান্তে এ ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেছে বাংলাদেশ কোস্টগার্ড। ভাসমান বড় ট্রলার দিয়ে যাত্রীদের উদ্ধার করে সেন্টমার্টিন নিয়ে আসা হবে বলে কোস্টগার্ড সূত্র।

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার রাতে অবৈধপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য যাত্রীবাহী ট্রলারটি মহেশখালী থেকে রওয়ানা হয়। সেন্টমার্টিন এলাকায় পৌঁছে ট্রলারে আরো কিছু যাত্রী উঠার কথা ছিল। কিন্তু তারা উঠতে দেরি হওয়ায় ট্রলারে অবস্থানরত যাত্রীরা অধৈর্য্য হয়ে মাঝি-মাল্লাদের সাথে দ্বন্দ্বে লিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

এ সময় তাদের লক্ষ্য করে বিজিপি গুলি ছুঁড়েছে বলে মোবাইল ফোনে জানান, ট্রলারে থাকা যাত্রী নরসিংদীর মিথুন। এতে ঘনস্থালেই ছয়জন নিহত হয়েছে বলেও জানান তিনি। তবে মিথুন নিহতদের নাম-পরিচয় জানাতে পারেননি।

অন্যদিকে, ট্রলারে বিজিপির গুলি ছুঁড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে টেকনাফ কোস্টগার্ডেল স্টেশন কমান্ডার কাজী হারুনুর রশিদ বলেন, বঙ্গোপসাগরে মালয়েশিয়াগামী বাংলাদেশি একটি  ট্রলারকে লক্ষ্য করে বিজিপির গুলি নিক্ষেপের কথা শুনেছি। কোস্টগার্ডের সদস্যরা ঘটনাস্থলে রওনা হয়েছেন বলেও জানান তিনি।

অন্যদিকে কোস্টগার্ডের পূর্বাঞ্চলের লে. কমান্ডার রাজিবুল ইসলাম জানান, সকালে বেশ কিছু যাত্রী নিয়ে একটি ট্রলার সেন্টমার্টিন এলাকায় পৌঁছলে বিজিপি গুলি ছোঁড়ে।

এতে ৫ জন নিহত হয়েছেন। তাদের উদ্ধারের জন্য কোস্টগার্ডের দুইটি টিম পাঠানো হয়েছে। তবে ট্র্রলারটি এখনো মিয়ানমার সীমান্তে রয়েছে বলেও জানান তিনি।

You Might Also Like