প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন আজ; সকল কার্যক্রম স্থগিত

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ৭০তম জন্মদিন আজ। কবি ও সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের মৃত্যুতে শোকাহত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার জন্মদিনে দলীয় সকল কর্মসূচি স্থগিতের নির্দেশ দিয়েছেন।

আজ (বুধবার) প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে বিকেলে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা এবং সকালে ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিলের কর্মসূচি ছিল। কিন্তু শোকাহত প্রধানমন্ত্রী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফোন করে এ দুই কর্মসূচিই স্থগিত করার নির্দেশ দেন।

এদিকে আওয়ামী লীগের কাউন্সিল সামনে রেখে সভানেত্রীর ধানমন্ডি কার্যালয় ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। একই কারণে স্থগিত করা হয়েছে আলোকসজ্জার কর্মসূচিও।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের বিশেষ সহকারী (মিডিয়া) মাহবুবুল হক শাকিল জানিয়েছেন, সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের মৃত্যুতে গভীরভাবে শোকাহত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথিতযশা এই কবির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেই দেশে তার জন্মদিন উপলক্ষে দলের নেয়া কর্মসূচি স্থগিতের নির্দেশ দিয়েছেন। ফলে আজ ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল এবং আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা হচ্ছে না।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের জ্যেষ্ঠ সন্তান শেখ হাসিনা ১৯৪৭ সালের এই দিনে মধুমতি নদীবিধৌত গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তার শৈশবকাল কাটে পিত্রালয়ে। ৫৪’র নির্বাচনের পর শেখ হাসিনা বাবা-মার সঙ্গে ঢাকায় চলে আসেন। রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হিসেবে ছাত্রজীবন থেকে প্রত্যক্ষ রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন তিনি। শুধু জাতীয় নেতাই নন, তিনি আজ গোটা বিশ্বের একজন বিচক্ষণ রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে অবতীর্ণ হয়েছেন নতুন ভূমিকায়। বিশ্বের শীর্ষ নেতারাও এখন শেখ হাসিনাকে দেখতে পান তাদেরই কাতারে।

রাজনৈতিক পরিবারে জন্মগ্রহণ করায় কিশোরী বয়স থেকেই তার রাজনীতিতে পদচারণা। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে ছাত্রলীগের নেত্রী হিসেবে তিনি আইয়ুববিরোধী আন্দোলন এবং ৬ দফা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। সহজ সারল্যে ভরা তার ব্যক্তিগত জীবন। মেধা-মনন, কঠোর পরিশ্রম, সাহস, ধৈর্য্য, দেশপ্রেম ও ত্যাগের আদর্শে গড়ে উঠেছে তার আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব। পোশাক-আশাকে, জীবনযাত্রায় কোথাও তার বিলাসিতা বা কৃত্রিমতার কোন ছাপ নেই। নিষ্ঠাবান ধার্মিক তিনি। নিয়মিত ফজরের নামাজ ও কোরান তেলাওয়াতের মাধ্যমে তার দিনের সূচনা ঘটে। নিয়মিত তাহাজ্জুদ নামাজও পড়ার চেষ্টা করেন তিনি। মানুষের জন্যই প্রতিদিনের প্রতিটি ক্ষণকে কাজে লাগানোর পণ তার।

৩৫ বছরের দীর্ঘ রাজনৈতিক পথপরিক্রমায় শেখ হাসিনা কেবল সেই মহান নেতার কন্যা এবং তার রাজনীতির উত্তরসূরি হিসেবেই গণমানুষের প্রধান নেতার আসনে স্থান পাননি, সেইসঙ্গে তিনি জেল-জুলুম, মামলা-হামলা, হত্যা চেষ্টাসহ হাজারও হুমকির মুখে অটল থেকে নেতৃত্বের অগ্নিপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন।

You Might Also Like