পতিতাবৃত্তিতে রাজি না হওয়ায় স্বামী-শাশুড়ির নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ

লালমনিরহাটের কালীগঞ্চ উপজেলার ভোটমারী এলাকায় পতিতাবৃত্তিতে রাজি না হওয়ায় স্বামী-শাশুড়ির নির্যাতনের শিকার হয়েছেন গৃহবধূ সূচনা আক্তার। নির্যাতনের একপর্যায়ে মাথা নেড়া করে দিয়েছে তার স্বামী মাসুদ মুকুল ও শাশুড়ী মুক্তা আক্তার।

কালীগঞ্জ থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ঐ উপজেলার ভোটমারী এলাকার ফজিজার রহমানের মেয়ে সুচনা আক্তারের সাথে ৬ মাস আগে পাশ্ববর্তী নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার খুটামারা ইউনিয়নের টেংগোরমারী বটতলা এলাকার আব্দুল্লাহ’র পুত্র মাসুদ মুকুল’র বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই সুচনা’র স্বামী মাসুদ মুকুল ও শাশুড়ী মুক্তা আক্তার তাকে পতিতা বৃত্তিতে বাধ্য করেন। এতে সূচনা রাজি না হলে তার উপর বিভিন্ন সময় নিযার্তন চালানো হয়। গত ৭/৮ দিন আগে সুচনা’র স্বামী ও শাশুড়ী নিযার্তনের এক পর্য়ায়ে তাকে জোর পূর্বক ঘুমের ওষধ খাওয়াইয়ে মাথা নেড়া করে দিয়ে ঘরে আটকে রাখে। স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় সুচনা আক্তার গত মঙ্গলবার বিকালে পালিয়ে বাবার বাড়ি ভোটমারী আসেন। এ ঘটনায় সূচনা আক্তার  বুধবার সকালে কালীগঞ্চ থানায় একটি সাধারণ ডাইরী করেন।

এ প্রসঙ্গে একাধিক বার যোগাযোগ করা হলেও সুচনা’র স্বামীর বাড়ির লোকজনের কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে ঐ এলাকার ইউপি সদস্য আব্দুল মান্নান এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এটা অমানবিক।

কালীগঞ্জ থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ সোহরার হোসেন জানান, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া ঘটনাস্থল জলঢাকা উপজেলা হওয়ায় ঐ থানা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

You Might Also Like