অস্ট্রেলিয়ায় সঙ্গীসহ বাংলাদেশি নারীর লাশ উদ্ধার

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে সঙ্গীসহ এক প্রবাসী বাংলাদেশি নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মৃত্যুকে ‘রহস্যজনক’ বলে মনে করা হচ্ছে।

সিডনির স্মিথফিল্ডে স্থানীয় সময় রোববার সাড়ে ১২টার পর তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

ছয় বছর একসঙ্গে বসবাস করার পর ডেভ পিলের সঙ্গে সম্পর্কোচ্ছেদ হয় অস্ট্রেলিয়াপ্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিক তাসমিন বাহারের। সিডনির স্মিথফিল্ডে ছোট্ট মেয়েকে নিয়ে যে বাড়িতে তারা থাকতেন, সেখান থেকে চলে যান তাসমিন।

সম্পর্কোচ্ছেদ হলেও তারা দুজন একটি বিষয়ে সম্মত হন, বিশেষ দিনগুলোতে মেয়ের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন ডেভ পিলে। রোববার বাবা দিবসে মেয়েকে নিয়ে পিলের বাসায় যান তাসমিন। তাদের মেয়ের বয়স তিন বছর।

রোববার দুপুরে পিলের বাসার বাথরুম থেকে বাহার ও পিলের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সিডনি পুলিশের হোমিসাইড স্কয়াডের ধারণা, হত্যার পর আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।

যখন বাহার ও পিলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়, তখন তাদের মেয়ে ঘুমাচ্ছিল। তার দেহে আঘাতের কোনো চিহ্ন নেই।

বাহারের যুক্তরাষ্ট্র-প্রবাসী বোন সারাজিন বাহার দ্য সিডনি মর্নিং হেরাল্ডকে জানিয়েছেন, হঠাৎ বোনের মৃত্যুর খবরে তিনি মর্মাহত। নিজের দেশ বাংলাদেশ হয়ে অস্ট্রেলিয়া যাবেন তিনি। ভাগ্নির লালনপালনের দায়িত্ব নিতে চান সারাজিন বাহার। কারণ সে তার বাবা-মা দুজনকেই হারিয়েছে।
tasmia
সারাজিন বলেন, ‘দুই দিন আগেও আমি যখন তাসমিনের সঙ্গে কথা বলেছি, তখনও সে ভালো ছিল।’ তিনি আরো বলেন, ‘তাকে (তাসমিন) হারিয়ে আমি অনেক কিছু হারিয়েছি। ভাগ্নির লালনপালনের দায়িত্ব নিতে চাই আমি। তাকে আমার সঙ্গে রাখতে চাই। আমি তার দেখাশোনা করব। তার জন্য যা ভালো হবে, আমি তা-ই করব।’

বাহার ও পিলের মৃত্যু রহস্য উদঘাটনে তদন্ত চলছে। তবে এখনো অন্য কাউকে অভিযুক্ত করা হয়নি। এক আত্মীয় এসে তাদের মৃতদেহ দেখে পুলিশকে খবর দেওয়ার আগে বাড়িতে কী হয়েছিল, সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানার চেষ্টা করছে পুলিশের বিশেষ টিম।

সারাজিন গণমাধ্যমকে আরো জানিয়েছেন, পিলের সঙ্গে ছয় বছরের সম্পর্ক ছিল তার বোনের। তাসমিন তাকে বলেছে, পিলে তাকে ও তাদের মেয়েকে আগে হুমকি দেয়। এ বিষয়ে তাসমিন পুলিশের কাছে অভিযোগও করেন।

কয়েক সপ্তাহ আগে মেয়েকে নিয়ে তাসমিন বাড়ি ছেড়ে চলে যায় এবং নতুন বাসায় ওঠেন। সারাজিন বলেন, ‘আমরা তাকে স্মিথফিল্ডে পিলের বাসায় যেতে নিষেধ করেছিলাম। কিন্তু বাবা দিবসে মেয়েকে নিয়ে সে সেখানে যায়। তাসমিন চেয়েছিল, ডেভ তার মেয়েকে দেখুক।’

You Might Also Like