সিরিয়ায় আগ্রাসন চালাতে গিয়ে প্রথম সেনা হারাল তুরস্ক

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় জারাবলুস শহরে এক রকেট হামলায় এক তুর্কি সেনা নিহত ও অপর তিনজন আহত হয়েছে। তুরস্কের সেনাসূত্র জানিয়েছে, কুর্দি ওয়াইপিজি যোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রিত এলাকা থেকে নিক্ষিপ্ত রকেটের আঘাতে এসব তুর্কি সেনা হতাহত হয়।

হামলায় তিনটি তুর্কি ট্যাংক ধ্বংস হয়েছে বলে কুর্দি গণমাধ্যম দাবি করেছে।

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে তৎপর উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএসআইএল বা দায়েশের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার অজুহাতে গত বৃহস্পতিবার সিরিয়ায় স্থল-সেনা পাঠায় আঙ্কারা। তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান ঘোষণা করেন, তার দেশের সেনারা কুর্দি বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোকেও নির্মূল করবে। সিরিয়া সরকার আঙ্কারার এ পদক্ষেপের তীব্র নিন্দা জানিয়ে এ ঘটনাকে একটি দেশের সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন বলে অভিহিত করেছে।

সম্প্রতি তুর্কি বিমান বাহিনীর সহযোগিতায় দেশটির সীমান্তবর্তী জারাবলুস শহরটি দায়েশের কাছ থেকে দখল করে নেয় সিরিয়ার বিদ্রোহীরা। কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় আলেপ্পো প্রদেশের জারাবলুস শহরটি রাজধানী দামেস্ক থেকে ৪০০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত।

শনিবার জারাবলুসের কাছে তুর্কি ট্যাংক ও কুর্দি ওয়াইপিজি যোদ্ধাদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। তুর্কি জঙ্গি বিমান শহরের দক্ষিণে ওয়াইপিজির অবস্থানে বোমাবর্ষণ করে। কুর্দি যোদ্ধাদের সমর্থিত একটি গোষ্ঠী এ বিমান হামলাকে যুদ্ধের ‘বিপজ্জনক বিস্তার’ বলে অভিহিত করেছে। এর আগে শনিবার সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে আরো ছয়টি ট্যাংক পাঠায় তুরস্ক। এরইমধ্যে সেখানে ৫০টি ট্যাংক ও ৩৮০ জন তুর্কি সেনা মোতায়েন রয়েছে।

তুরস্ক হুমকি দিয়েছে, সিরিয়া সীমান্ত থেকে যতক্ষণ পর্যন্ত ‘সন্ত্রাসী’ হুমকি মুছে না যাবে ততক্ষণ পর্যন্ত সিরিয়ায় তুর্কি সেনা অভিযান চলবে। কুর্দি বিদ্রোহীদেরকে সাধারণত আঙ্কারা সন্ত্রাসী হিসেবে অভিহিত করে। এতদিন দায়েশের প্রতি পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে আসলেও সাম্প্রতিক সময়ে এই জঙ্গি গোষ্ঠীকেও সন্ত্রাসী বলতে শুরু করেছে এরদোগান সরকার।

You Might Also Like