বঙ্গবাহাদুর মরে গেছে বটে কিন্তু বঙ্গ মানুষের রঙ্গ কমেনি!

দেশের প্রথম সারির জাতীয় পত্রিকার ভাষ্যমতে, দেশবাসীকে কাঁদিয়ে বড় অবেলায় চলে গেলো বঙ্গবাহাদুর ! দেশাবসীর কতজন কেঁদেছে তার হিসাব গণমাধ্যম করুক, আমরা বরং একটু রঙ্গ করে আসি । ছোট বেলায় শুনেছি, হাতি বাঁচলেও লাখ টাকা আর মরলেও লাখ টাকা ! জন্মসূত্রে বঙ্গবাহাদুর যেহেতে বাংলাদেশের নয় বরং আসামের, তাই লাখ টাকার ভাগ-বটোয়ারা কি ধরনের ওয়ারিশসূত্রে হবে-এবার তার একটা হিল্লে হওয়া দরকার ! জাতির সকল জাতীয় বুদ্ধিজীবিদের এ মহৎ কাজে গবেষণা ও অভিজ্ঞতালব্ধ জ্ঞান বিনিয়োগ করা উচিত !
….
প্রথম আলোসহ যারা বঙ্গবাহাদুরের সকল খবরা-খরব সেকেন্ডে সেকেন্ডে দেশবাসীকে জানানোর জন্য তাদের শক্তির সবটুকু উজাড় করেছে তারা লাখ টাকার ভাগ পেতেই পারে ! পাওয়াটাই তাদের ন্যায্য অধিকার ! বঙ্গবাহাদুরকে নিয়ে যারা অতিরিক্ত লম্ফ-জম্ফ করেছে তাদের সবার ভাগে মাত্র লাখ টাকা বটোয়ারা করলে তাদের ভাগে নেহায়েৎ কম পড়বে । তাই, যে বানের জলে বঙ্গবাহাদুর ভেসে এসেছিল, সেই বানের জলে এখন যারা ভেসে আছে-যাচ্ছে, তাদের থেকে চাঁদা তুলেও কিছু পয়সা-কড়ি বিভিন্ন মিডিয়াকে দেয়া উচিত । বঙ্গবাহাদুরের জন্য তারা এতকিছু করলো, আর আমরা তাদের জন্য কিছুই করবো না ? যারা ১৬ ডিসেম্বরকেও শোক দিবস হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে ব্যস্ত তাদেরকে সামান্য পয়সা-কড়ি বখশিস না দিলে সেটা মারাত্মক গোস্তাখী হয় !
….
প্রথম আলোর প্রথম চোখে দেখা, বঙ্গবাহাদুরের মায়ায় যে সকল দেশবাসীর চোখের পানিতে বান ডেকেছে তাদের জন্য সামান্য টিস্যুর ব্যবস্থা না করলে, সেটা অবিচার হবে ! কাজেই বঙ্গবাহাদুরের লাখ টাকা থেকে তো আর টিস্যু খরিদের ব্যবস্থা করা যাচ্ছে না, তাই উত্তরাঞ্চল-মধ্যাঞ্চলের যে সকল মানুষ বানের জলে ভাসছে তাদের জমি-জিরাত বন্দক-বিক্রি করে কিছু টাকা যদি তারা দেশবাসীর চোখাশ্রু দূরীকরণের মহৎ কাজের লক্ষ্যে টিস্যু খরিদের জন্য দিতো, তবে বড়ই উপকৃত হওয়া যেতো । জাতি কৃতজ্ঞতার সাথে তাদের অবদানকে সারাজীবন মাথায় বয়ে বেড়াত !
…..
আমরা বঙ্গবাহাদুরের জন্য এত কিছু করলাম আর বন্যা কবলিত এলাকার মানুষ আমাদের চোখের পানির চিহ্ন দূর করার জন্য যদি কিছু না করে, তবে সেটা মারাত্মক গাদ্দারীর শামিল ! বঙ্গবাহাদুর এবং তার অনুসারীদের কোন কষ্ট থাকবে আর দেশের মানুষ পানিতে হৈ হৈ করে সাঁতার কাটবে-এটা মানবতার খেলাফ । আসুন আমরা বঙ্গবাহাদুরের রুহের মাগফেরাত কামনা করে লুঙ্গি ড্যান্সের আয়োজন করি ! বানভাসি মানুষকে আরও চুবিয়ে এবং তাদেরকে আরও কয়েকদিন ভূখা রেখে আমরা বঙ্গবাহাদুরের অকাল প্রয়াণে ৫ দিনের জাতীয় শোক পালন করতে পারি ! বঙ্গবাহাদুরের অসময়ে চলে যাওয়ায় যে শুণ্যস্থান হয়েছে তা আর পূরণ হবে না কোনদিন । জাতির এ অপূরণীয় ক্ষতির ক্ষত কি করে জাতি পূরণ করবে ? বঙ্গবাহাদুরের চলে যাওয়ায় জাতি শত বছর পিছিয়ে গেল ! বঙ্গবাহাদুরের তিরোধানে জাতি বড় লোকাসানীতে নিপতিত হলো এবং বঙ্গবাহাদুরের অভাব তারা ক্ষণে ক্ষনে উপলব্ধি করতে পারবে বলে বিশ্বাস ! জয়তু বঙ্গবাহাদুর !

রাজু আহমেদ । কলামিষ্ট ।
fb.com/rajucolumnist/

You Might Also Like