গো-রক্ষার নামে যারা দোকান খুলেছে তাদের দেখলে রাগ হয়: মোদি

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তথাকথিত গো-রক্ষকদের তীব্র কটাক্ষ করে কড়া বার্তা দিয়েছেন। তিনি আজ (শনিবার) এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘গো-সেবার নামে কিছু লোক নিজেদের দোকান খুলে রেখেছে। এসব লোককে দেখলে খুব রাগ হয়।’

তিনি বলেন, ‘কিছু লোক রাতে অবৈধ কাজ কর্মে লিপ্ত থাকে, তারাই আবার দিনে গো-সেবকের চোলা (পোশাক) পরিধান করে থাকে।’ তিনি রাজ্য সরকারকে এ ধরণের লোকের বিরুদ্ধে দলিল তৈরি করতে বলেছেন। ৭০/৮০ শতাংশ এসব লোক আসলে ভুয়া গো-সেবক বলেও মন্তব্য করেন মোদি।

এভাবে গো-রক্ষার নামে যারা সমাজবিরোধী কাজকর্ম করছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চান বলে বুঝিয়ে দিয়েছেন মোদি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা জেনে অবাক হবেন যে, অধিকাংশ গরু জবাইজনিত কারণে নয়, প্লাস্টিক খেয়ে মারা যায়। একবার আমি একটি গরুর পেট থেকে পুরো দুই বালতি প্লাস্টিক বেরোতে দেখেছি। এ ধরণের গো-সেবকদের প্রতি আমার অনুরোধ, গরুকে প্লাস্টিক খাওয়ানো বন্ধ করতে পারলে সেটা প্রকৃত সেবা হবে।’

সম্প্রতি ভারতে গরু রক্ষার নামে বিভিন্ন ঘটনায় মুসলিম এবং দলিতদের ওপর নানা জুলুমের ঘটনা ঘটলেও প্রধানমন্ত্রী এতদিন এ নিয়ে স্পষ্টভাবে কার্যত কিছুই বলেননি। বিজেপি শাসিত গুজরাটের উনা এবং অন্যত্র দলিতদের ওপর যে নির্যাতন হয় তা নিয়ে দলিতরা তীব্র প্রতিবাদ আন্দোলনে শামিল হয়েছেন, যা হিন্দুত্ববাদী বিজেপি’র ভোট ব্যাংকে ব্যাপক ফাটল সৃষ্টি করেছে। খোদ মোদির রাজ্য গুজরাটে পরবর্তী নির্বাচনে বিজেপি ক্ষমতায় ফিরতে পারবে কী না তা নিয়ে সংশয় সৃষ্টি হয়েছে।

তাছাড়া, উত্তর প্রদেশে মুহাম্মদ আখলাক হত্যা থেকে গুজরাটের উনায় দলিত নির্যাতনকে কেন্দ্র করে দেশে-বিদেশে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছে কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকার। কয়েকদিন আগে বিজেপি শাসিত মধ্যপ্রদেশের এক রেল স্টেশনে দুই মুসলিম মহিলাকে তাদের কাছে গরুর গোশত আছে এমন গুজব তুলে, প্রকাশ্যে ব্যাপক মারধর করে নির্যাতন করে তথাকথিত গো-প্রেমীরা। যদিও ওই মহিলাদের কাছে ছিল মহিষের গোশত। এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে তথাকথিত গো-রক্ষকদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তীব্র কটাক্ষ করে কড়া বার্তা দেয়া বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

You Might Also Like