প্রত্যাশার চাপ? হিসেব মেটাবেন নেইমার?

‘অবিশ্বাস্য হলেও সত্য’ ফুটবলের জনপ্রিয় দেশ ব্রাজিল এখন পর্যন্ত অলিম্পিক ফুটবলের শিরোপা জেতেনি। এমন কোনো ট্রফি নেই যা ব্রাজিল জেতেনি। এক বিশ্বকাপই তো জিতেছে পাঁচবার। অথচ এই অলিম্পিকের শিরোপায় চুমু খাওয়া হয়নি পেলে, জিকো, কার্লোস দুঙ্গা, রোমারিও, রোনালদো, রোনালদিনহো, রবার্তো কার্লোসদের দেশটির।

এবার এ নিয়ে আরও বেশি কথা হচ্ছে, ২০১৬ অলিম্পিক ব্রাজিলে বলেই। আর এর জন্য মরণপণ প্রস্তুতিই নিয়েই মাঠে নামবে সেলেকাওরা। দলের নেতৃত্বে পেলের উত্তরসূরি নেইমার। উদ্বোধনী দিনে ০৪ আগস্ট বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত ১টায় দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে খেলতে নামবে স্বাগতিক ব্রাজিল। গ্রুপে তাদের অন্য দুই প্রতিপক্ষ ডেনমার্ক ও ইরাক।

এবারের অলিম্পিকে নিজেদের মাটিতে খালি হাতে বসে থাকতে চায় না ব্রাজিল। অলিম্পিক ফুটবলে অধরা স্বর্ণ নিয়ে স্বপ্ন দেখা সেলেকাও দলপতি নেইমার দলগতভাবে খেলেই প্রথমবারের মতো অলিম্পিক শিরোপায় চুমু খেতে চান। তবে, ঘুরেফিরে আসছে সেই আলোচনাই। ঘরের মাটিতে দুই বছর আগের বিশ্বকাপের সময়ও কি এতো প্রত্যাশার চাপ ছিল নেইমারের ওপর? তবে, ব্রাজিলের বর্তমান অধিনায়ক নেইমারের কণ্ঠে, ‘এবার আমাদের হাতেই উঠবে শিরোপা।’

কোপা আমেরিকায় গ্রুপ পর্ব থেকে ব্রাজিলের বিদায়ের পর কোচ কার্লোস দুঙ্গাকে বরখাস্ত করা হয়। ফলে, অলিম্পিক দলের দায়িত্ব বর্তায় অনূর্ধ্ব-২০ দলের কোচ রোজারিও মিকেলের ওপর। পাঁচ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল শ্রেষ্ঠত্ব কোপা আমেরিকার শিরোপাও আটবার ঘরে তুলেছে। কনফেডারেশনস কাপ তো আছেই। শুধু তাদের শোকেসে নেই অলিম্পিকের শিরোপা। মিকেলের হাত ধরে আর নেইমারদের পারফর্মে এবার অধরা এই শিরোপা জিততে মরিয়া ব্রাজিল।

এর আগে ২০১২ লন্ডন অলিম্পিকে স্বর্ণ জয়ের খুব কাছে গিয়েও, ফাইনালে মেক্সিকোর কাছে হেরে স্বপ্ন ভঙ্গ হয় নেইমারদের। এবার ব্রাজিলের হয়ে দ্বিতীয়বারের মতো অলিম্পিকে অংশ নিতে যাচ্ছেন নেইমার। আর অলিম্পিকে খেলবেন বলে কোপা আমেরিকার শতবর্ষী আসরে খেলেননি বার্সার এই তারকা। দৃঢ় কণ্ঠেই তিনি জানিয়েছেন, ‘অলিম্পিকের জন্য আমি অনেক দিন ধরেই নিজেকে প্রস্তুত করেছি। মাঠ ও মাঠের বাইরে যে কোনো ভূমিকায় আমি দলের হয়ে অবদান রাখতে চাই। শিরোপা জেতার জন্য দলগতভাবে নিজেদের সেরাটা দিয়েই খেলবো আমরা।’

ব্রাজিলের অলিম্পিক কোচ রোজারিও মিকেল আগেই বলে দিয়েছেন, ‘আমি নেইমারের উপরই ভরসা করি। পৃথিবীর কোনো কোচ সেটি করবে না।’ নেইমারের নিজেরও দুঃখ ভোলার সমীকরণ আছে। নিজেদের মাটিতে বিশ্বকাপ জেতাতে পারেননি ইনজুরিতে ছিটকে পড়ার কারণে। লন্ডন অলিম্পিকে রানার্সআপ হতে হয় নেইমারকে। আর সব হিসেব মিটিয়ে দিতে উন্মুখ হয়েই আছেন ২৪ বছর বয়সী বার্সেলোনার এই ফরোয়ার্ড।

এখন পর্যন্ত অলিম্পিকে ১২ বার অংশ নিয়ে তিনবার রৌপ্য (১৯৮৪, ১৯৮৮ ও ২০১২ সালে) ও দু’বার ব্রোঞ্জ জিতেছে ব্রাজিল। ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে জার্মানির কাছে ৭-১ গোলে হেরে বিশ্বমঞ্চ থেকে বিদায় নেয় ব্রাজিল। চিলিতে অনুষ্ঠিত কোপা আমেরিকার আসরেও আগেভাগেই বিদায় নিতে হয় সেলেকাওদের। আর সবশেষ কোপা আমেরিকার শতবর্ষী আসরে আমেরিকার মাটিতে গ্রুপপর্ব থেকে তাদের দ্রুত বিদায় নিতে হয়েছিল।

স্বাগতিক ব্রাজিল এবার কি পারবে অলিম্পিকের আসরে অধরা স্বর্ণ জিতে শিরোপা নিজেদের ঘরেই রেখে দিতে? যা পারেননি রোমারিও, কাকা, রোনালদো, রোনালদিনহোরা। ষষ্ঠ বিশ্বকাপ জয়ের চাপ ছিল নেইমারের উপর। এবারো চাপ থাকছে সেই নেইমারের উপরই। তবে, ভিন্ন ইভেন্টে। যদিও বিশ্বমঞ্চের মতো এতটা গুরুত্বপূর্ণ নয় অলিম্পিক। কিন্তু, নিজেদের ফুটবলের ইতিহাসে যা কোনো ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার পারেননি, সেটিই করে দেখানোর চাপ ব্রাজিল অধিনায়ক নেইমারের উপর।

You Might Also Like